প্রতীকী ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: সামুদ্রিক ঘূর্ণিঝড় ফণীর জন্য অনিশ্চিত বাংলায় কানহাইয়া কুমারের জনসভা৷ সিপিআইয়ের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য জেএনইউ-এর এই বিতর্কিত ছাত্র নেতা লোকসভা নির্বাচনে বিহারের বেগুসরাই থেকে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন৷ রাজ্য তার ৬টি জনসভা করার কথা৷ কিন্তু প্রাকৃতিক দূর্যোগের পরিপ্রেক্ষিতে ওই সভাগুলি বাতিল হওয়ার মুখে৷

রাজ্য সিপিআই, বামফ্রন্টের তরফ থেরে যারা সভার মূল উদ্যোক্তা, তাদের বক্তব্য, সভা অনিশ্চিত৷ দলের রাজ্য সম্পাদক স্বপন দাশগুপ্ত বলেন, ‘‘বাতিল বলছি না৷ তবে এই প্রাকৃতিক পরিস্থিতিতে কী করে সভা হবে৷ সেক্ষেত্রে সভা অনিশ্চিত বলাই ভালো৷’’ স্বপনবাবু বক্তব্য, ‘‘যদি সভা না হয় তবে কানহাইয়ার সঙগ্গে কাত বলে আমরা অন্য কোনও দিন সভার আয়োজন করব৷’’

বাংলায় ৬টি জনসভা করার কথা কানহাইয়া কুমার৷ ৪ মে উত্তর ২৪ পরগণার বারাকপুরে সিপিএম প্রার্থী গার্গী চট্টোপাধ্যায়ের হয়ে প্রচার করার কথা কানহাইয়া৷ পূর্ব মেদিনীপুরের তমলুক এবং পাঁশকুড়াতেও ওইদিন তিনি প্রচার করার কথা৷ পরের দিন, ৫ মে ঝাড়গ্রাম, মেদিনীপুর এবং দাসপুরে প্রচার কর্মসূচী রয়েছে৷ রাতেই ফিরে আসার কথা কলকাতায়৷ ৬ মে কলকাতা ছাড়বেন৷ কিন্তু এই পরিস্থিতিতে কানহাইয়া নাও আসতে পারেন৷

বাংলায় কানহাইয়ার জনসভাকে ঘিরে বামকর্মী সমর্থকরা স্বপ্ন দেখেছে৷ সিপিআই সূত্রে জানা গিয়েছে, ষষ্ঠ এবং সপ্তম দফার আগে তিনি রাজ্যে লাগাতার প্রচার চালাবেন৷ পশ্চিমবঙ্গে নরেন্দ্র মোদী এবং অমিত শাহ বিজেপির প্রচার করেছেন৷ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে তো তৃণমূল কংগ্রেসের প্রচারে একাই সব লাইমলাইট নিয়ে রেখেছেন৷ সেক্ষেত্রে সারা দেশে বাম রাজনীতির ‘ক্রাউড পুলার’ কানহাইয়া কুমারকে নিয়ে অনেক আশা বাম জনতার৷

কলকাতায় কয়েক মাস আগেই সিপিআই-এর প্রতিষ্ঠা দিবসে বক্তব্য রেখে গিয়েছেন কানহাইয়া৷ সেখানে তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বাক্যবাণে বিদ্ধ করেছিলেন৷ তিনি বলেছিলেন মুসলমানের বন্ধু হতে চাইছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী৷ মোদী হিন্দুদের বন্ধু হতে চাইছেন৷ ধর্মের রাজনীতিতেই আজ দেশের সংবিধান বিপন্ন৷ দেশের বিভাজনের রাজনীতি নিয়ে এসেছেন মোদী-মমতা৷

সারা দেশে মোদী বিরোধী নেতাদের মধ্যে অগ্রে যাঁরা রয়েছেন – তাদের মধ্যে অন্যতম কানহাইয়া কুমার৷ কানহাইয়া এবং জেএনইউ-তে তাঁর একসময়ের সহপাঠী উমর খলিদ এবং অনির্বান বন্দ্যোপাধ্যায়কে ‘টুকরে টুকরে গ্যাং’ বলে আক্রমণ করেছে বিজেপি৷ অন্যদিকে নরেন্দ্র মোদীকে ভারতের গণতন্ত্র রক্ষার পক্ষে যে অতি বিপজ্জনক বলে ব্যাখ্যা করেছেন কানহাইয়া৷