রাঁচি: বিহারের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা আরজেডি সুপ্রিমো লালুপ্রসাদ যাদবের করোনা পরীক্ষা হতে পারে। পশুখাদ্য কেলেঙ্কারিতে দোষী সাব্যস্ত হয়ে ১৪ বছরের কারাদণ্ডের সাজা ভোগ করছেন প্রাক্তন রেলমন্ত্রী। ২০১৭ সালের শেষদিক থেকে রাঁচির সেন্ট্রাল জেলেই আছেন তিনি।

তবে আপাতত তিনি ভরতি রাঁচির রাজেন্দ্র ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্সে। লালুপ্রসাদ যাদবকে যিনি দেখছেন সেই চিকিৎসককে সম্প্রতি কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে। তারপর থেকেই প্রাক্তন রেলমন্ত্রীর করোনা পরীক্ষার সম্ভাবনা জোরালো হচ্ছে।

রাঁচির রাজেন্দ্র ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্স হাসপাতালে লালুপ্রসাদ যাদবের চিকিৎসার দায়িত্বে আছেন চিকিৎসক উমেশ প্রসাদ। এই চিকিৎসকের তত্বাবধানে থাকা এক রোগী সম্প্রতি করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। সেই ব্যক্তিও রাঁচির রাজেন্দ্র ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্সেই ভরতি রয়েছেন।

এদিকে, করোনা আক্রান্তের সংস্পর্শে আসায় হাসপাতালের কর্মী ও চিকিৎসকদের নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। বিহারের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী লালুপ্রসাদ যাদবের চিকিৎসক উমেশ প্রসাদ-সহ আরও বেশ কয়েকজন চিকিৎসককে কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, প্রয়োজনে লালুপ্রসাদ যাদবেরও করোনা পরীক্ষা করা হতে পারে। এমনিতেই বয়সজনিত নানা অসুখে ভুগছেন লালু। মাঝেমধ্যেই তাঁকে হাসপাতালে ভরতি হতে হয়। এবার তাঁর করোনা পরীক্ষার সম্ভাবনা তৈরি হতেই পরিবারের সদস্যরা ঘোর উদ্বেগে রয়েছেন। স্ত্রী রাবড়িদেবী বারবার খবর নিচ্ছেন। ছেলেরাও প্রতিনিয়ত চিকিৎসকদের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলেছেন।

যদিও প্রশাসনের তরফে লালুপ্রসাদ যাদবের পরিবারেরে আশ্বস্ত করা হয়েছে। লালুপ্রসাদের যাদবের করোনা আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা নেই বলেই মনে করছে সরকার। যদিও সুযোগ বুঝে লালুপ্রসাদকে জেল থেকে বের করার দাবিতে সরব হয়েছে তাঁর দল আরজেডি।

লালুপ্রসাদ যাদবকে প্যারোলে মুক্তি দেওয়ার দাবিতে সরব হয়েছেন তাঁর ছেলে তেজস্বী যাদব। করোনা সংক্রমণের এই আবহে হাসপাতাল বা জেলে থাকলে করোনা আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেশি, সেই তত্ত্ব সামনে রেখেই লালুকে প্যারোলে মুক্ত করার ব্যাপারে মরিয়া চেষ্টা চালাচ্ছে তাঁর পরিবার ও দল আরজেডি।

প্রশ্ন অনেক: দ্বিতীয় পর্ব