পাটনা: ছেলে বছরে এক কোটি টাকার চাকরি পাবে। তাও আবার মাইক্রোসফটে। এ বোধহয় স্বপ্নেও ভাবেননি বিহারের ঝালাইমিস্ত্রী। তাই শুনে প্রথমটায় বিশ্বাসই করেননি তিনি। কিছুক্ষণের জন্য তাঁর মুখ থেকে কথা সরছিল না। যদিও ছেলের কথায় এই চাকরি পাওয়াটা মোটেই খুব একটা কঠিন কাজ ছিল না।

বিহারের খাগারিয়ায় বাড়ি খড়গপুর আইআইটির ছাত্র বাৎসল্য সিং চৌহানের। গ্রামের স্কুলেই পড়াশোনা। আইআইটি কি? খায় না মাথায় দেয়? জানতেনই না। তারপরেই ম্যাজিক। ১.০২ কোটির চাকরি এখন তাঁর ঝুলিতে। পাঁচ রাউন্ড ইন্টারভিউর পর মাইক্রোসফটে চাকরি পান বাৎসল্য। ছেলেকে পড়াতে বাবা চন্দ্রকান্ত সিং লোন নিয়ে পাঠিয়েছিলেন আইআইটি-তে। মেধাবী ছাত্র হিসেবে স্কলারশিপ পেতে কোনোদিনই অসুবিধা হয়নি। তবু ছেলের পড়াশোনার দরকারে টাকা দিতে কোনোদিনই পিছপা হননি তিনি।

বাৎসল্য জানিয়েছেন, পরীক্ষাটা খুব কঠিন ছিল না। তবে এতটাও আশা করেননি। প্রথমে কোড রাইটিং টেস্ট দেন তিনি। পরে আরও একটা লেখা পরীক্ষা আর তিন রাউন্ড ইন্টারভিউ। তাঁর আত্মবিশ্বাসী উত্তরে চাকরির জন্য বেছে নেওয়া হয় তাঁকে।

২০০৯-এ আইআইটি-র এন্ট্রান্সে পাশ করেন তিনি। কোটায় কোচিং ক্লাসে ভর্তি করা হয় তাঁকে। সেখানেই তিনজন শিক্ষক তাঁর পড়াশোনার সব দায়িত্ব নিতে চান। তাঁরাই সব খরচ বহন করে। শুধু বাড়িতে এলে ট্রেনের টিকিটের টাকা দিতে হত বাবাকে। বর্তমানে কোটায় কোচিং ক্লাসে মেডিক্যালের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে বাৎসল্যের বোন।