স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: দুর্গাপুজো নিয়ে ভুয়ো পোস্ট ছড়ানোর অভিযোগে ধৃত যুবকের বাড়িতে বিক্ষোভ দেখাল তৃণমূল। অভিযুক্ত ওই যুবকের নাম শুভ্র দে। কলকাতা পুরসভা ২ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা তিনি।

তৃণমূলের অভিযোগ, অশান্তি তৈরির জন্য বিজেপির থেকে টাকা নিয়ে ভুয়ো পোস্ট করা হচ্ছে। যদিও পরিবারের তরফে টাকা নিয়ে পোস্ট করার অভিযোগ উড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।

সম্প্রতি দুর্গাপুজো নিয়ে একটি ভুয়ো পোস্ট ছড়িয়ে পড়ে ফেসবুকে । যা গোটা রাজ্যে তোলপাড় ফেলে দেয়। ওই পোস্টে বলা হয়েছিল, পুজোর সময় নাইট কারফিউ চলবে, অষ্টমীর অঞ্জলিতে ফুল থাকবে না, সিঁদুরখেলা হবে না, প্যান্ডেল ঘুরে ঘুরে ঠাকুর দেখাও যাবে না। এই পোস্ট ছড়িয়ে পড়ে হোয়াটসঅ্যাপেও। যদিও রাজ্য সরকার বা পুলিশ কেউই দুর্গাপুজো নিয়ে এখনও কোনও নিয়মাবলি প্রকাশ করেনি। তা সত্বেও সোশ্যাল মিডিয়ার পোস্টে সাধারণ মানুষ থেকে পুজো উদ্যোক্তা – প্রত্যেকেই বিভ্রান্ত হন। বিষয়টি নজরে পড়তেই কলকাতা পুলিশের তরফে সেটি ভুয়ো দাবি করে টুইট করা হয়।

এরপরই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যাঁরা ওই পোস্ট করেছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য নির্দেশ দেন পুলিসকে। তদন্তে নেমে
ঘটনার পরেরদিনই ঘোলা ও বরানগর থানার পুলিশ গ্রেফতার করে ২ যুবককে। এখনও পর্যন্ত এই ঘটনায় চার জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

এদিন তৃণমূলের লোকজন ওই যুবকের বাড়িতে বিক্ষোভ দেখানোর সময় বচসা বেঁধে যায় দুপক্ষের মধ্যে। যদিও ছেলের বিরুদ্ধে ওঠা টাকা নিয়ে ভুয়ো পোস্ট করার অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে পরিবার। ওই যুবকের পরিবারের দাবি, তাঁদের ছেলে ওই পোস্টটি শেয়ার করেছে মাত্র। পাশাপাশি তাঁদের আরও অভিযোগ, স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব হুমকি দিয়েছে তাদেরকে বাড়িতে থাকতে দেওয়া হবে না। এঘটনায় তাঁরা আতঙ্কিত।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।