নয়াদিল্লি:  প্রত্যেকদিন বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। সংক্রমণের নিরিখে প্রত্যেকদিনই ভাঙছে রেকর্ড। এই পরিস্থিতিতে ফের লকডাউনের পথে হাঁটতে পারে নাকি কেন্দ্রীয় সরকার! সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল হয়ে যায় এমনই কিছু খবর। আর সেই খবর নিয়েই বিভ্রান্তি ছড়িয়ে পড়ে জনমানসে।

যদিও পিআইবি’র তরফে স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে, লকডাউন নিয়ে ভাইরাল হওয়া খবর সম্পূর্ণ ভুয়ো। নতুন করে লকডাউন হওয়া নিয়ে কোনও সিদ্ধান্ত কিংবা আলোচনা কোনওটাই হয়নি সরকারি তরফে। সুতরাং পিআইবির তরফে জানানো হয়েছে যে, এমন কোনও ভুয়ো খবর বিশ্বাস না করার জন্যে।

জানা যায়, দুর্যোগ মোকাবিলা দফতরের প্যাডে লিখিত আকারে নোটিসের মাধ্যমে ভাইরাল করা হয় এই ভুয়ো নোটিস। এতে দুর্যোগ মোকাবিলা দফতরের নাম করে বলা হয়েছে লকডাউনের কথা। বলা হয়েছে যে, আগামী ২৫ সেপ্টেম্বর থেকে দেশে ফের চালু হবে লকডাউন। শুধু তাই নয়, সেই লকডাউন চলবে ৪৬ দিন ধরে।

এহেন খবর মুহূর্তের মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল হয়ে যায়! অনেক জায়গাতেই ভুয়ো এই খবর ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। এরপরেই প্রশাসনের তরফে একদিকে যেমন ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। পিআইবি -র পক্ষ থেকে স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। এই নোটিস ফেক।

এনডিএম-এ সাম্প্রতিককালে এমন কোনও নির্দেশিকাই জারি করেনি। ইচ্ছাকৃত ভাবে ভয় ছড়ানোর উদ্দেশ্যেই এই ধরনের ভুয়ো তথ্য ছড়ানো হচ্ছে। এমনকি জাল করা হয়েছে এইডিএমএ-এর প্যাড এবং ভারত সরকারের স্ট্যাম্পও।

দেশজুড়ে এখন চতুর্থ পর্যায়ের লকডাউন চলছে। ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হচ্ছে পরিস্থিতি। খুলতে শুরু করেছে অফিস-কাছারিও। এই পরিস্থিতিতে সংক্রমণের ভয়কে সরিয়ে রাস্তায় বের হতে হচ্ছে মানুষকেও। পেটের টানে রাস্তায় বের হতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে। এই পরিস্থিতিতে এহেন ভুয়ো নোটিশ ঘিরে আতঙ্ক তৈরি হয়।

সংক্রমণ কমার লক্ষণ নেই দেশে। ফের শেষ ২৪ ঘন্টায় আক্রান্ত হলেন ৯৪ হাজারের বেশি মানুষ। এই সময়ের মধ্যে করোনার জেরে মৃত্যু হয়েছে ১১১৪ জনের।

নতুন সংক্রমণ ও মৃত্যুর দেশে দেশে মোট করোনা সংক্রমণ ছাড়িয়েছে ৪৭ লক্ষের গণ্ডি। দেশে মোট আক্রান্ত ৪৭ লক্ষ ৫৪ হাজার ৩৫৭ জন। এরমধ্যে অ্যাক্টিভ কেস রয়েছে ৯ লক্ষ ৭৩ হাজার ১৭৫। দেশজুড়ে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩৭ লক্ষ ২ হাজার ৫৯৬ জন। এখন পর্যন্ত মোট মৃত্যু হয়েছে ৭৮ হাজার ৫৮৬ জনের।

প্রকোপ যেমন বাড়ছে, তেমনই এই মুহুর্তে লাখ টাকার প্রশ্ন। করোনা ভ্যাকসিন কবে পাওয়া যাবে? করোনা ভ্যাকসিনের আশা করছেন প্রত্যেকেই।গবেষকরা বলছেন, যতক্ষণ না কার্যকরী, নিরাপদ ও সহজলভ্য ভ্যাকসিন নিয়ে আসা যাচ্ছে, ততক্ষণ পর্যন্ত করোনা ভাইরাসের হাত থেকে কেউই নিরাপদ নন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।