স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: ‘‘আপনার মোবাইল রিচার্জ করবেন না৷ নরেন্দ্র মোদী টকটাইম হিসেবে ৪০০ টাকা দিচ্ছেন৷ তাঁর প্রকল্প গ্র্যান্ড সিটির বিশাল সাফল্যের জন্য৷ এই বার্তাটি তিনটি গ্রুপে পাঠান আর ৫মিনিট অপেক্ষা করুন৷’’ এরকমই একটি লেখা সমেত স্ক্রিনশট শেয়ার করা হচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়ার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম whatsaap-এ৷ স্ক্রিনশটটির ডান দিকের কোনায় ‘শেয়ার চ্যাট’ নামের অন্য একটি অ্যাপের লোগো রয়েছে৷ স্ক্রিনশটটির একেবারে নীচে লেখা, ‘‘আমিও হেসেছি , কিন্তু এটা সত্য৷’’

আদৌও কী এরকম কোনও টাকা পাওয়া যাচ্ছে এই বার্তা শেয়ার করলে? না, পরীক্ষা করে দেখা গেল পুরো বিষয়টায় ভুয়ো৷ স্ক্রিনশটে দেওয়া নির্দেশের পালন করে ৫ মিনিট কেন ১৫ মিনিট অপেক্ষা করলেও কোন রকম টক টাইম ঢোকেনি ফোনে ব্যবহৃত সিমকার্ডে৷ হোয়াটস অ্যাপে শেয়ার হওয়া এই বার্তাটির ছত্রে ছত্রে অসঙ্গতি রয়েছে৷ কয়েকবছর আগে নরেন্দ্র মোদী সরকারের নিয়ে আসা প্রকল্প হল স্মার্ট সিটি, গ্র্যান্ড সিটি নয়৷

ওই নামে কেন্দ্র সরকারের কোন প্রকল্প রয়েছে কিনা জানতে রাজ্য বিজেপির সম্পাদক সায়ন্তন বসুকে ফোন করা হলে তিনি বলেন, ‘‘এ রকম কোন প্রকল্পের কথা আমি অন্তত জানি না৷’’ এরপর তাঁকে whatsaap-এ ভাইরাল বার্তাটির ব্যাপারে বলা হলে সায়ন্তন বলেন, ‘‘আমার মনে হয় কোনও অসামাজিক ব্যক্তি মোদী সরকারকে বদনাম করা উদ্দেশ্যে এসব প্রচার করছে৷ আমি বিষয়টি আপনার কাছেই শুনলাম৷ খোঁজ নিয়ে দেখছি ব্যাপারটা৷’’ প্রায় একই কথা বললেন রাজ্য বিজেপির মিডিয়া কনভেনর সপ্তর্ষী চৌধুরীও৷ তাঁর বক্তব্য, এইগুলো সবে ফেক নিউজ উদ্দেশ্য নিয়ে ছডা়য় কিছু লোক৷

রাজ্য বিজেপির সোশ্যাল মিডিয়া সেলের দায়িত্বে থাকা উজ্জ্বল পারেখকে ফোন করা হলে তিনি জানান, ‘‘আমার কাছে এখনও এরকম কোনও মেসেজ আসেনি৷ whatsaap কিংবা ফেসবুকে এরকম কোনও মেসেজ পেলে তারপরেই বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে পারবো৷’’