প্রতীকী ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, জলপাইগুড়ি: প্রাচীন ঐতিহ্য মণ্ডিত কালু সাহেবের মাজার পরিচালন সমিতির পদ নিয়ে বর্তমানে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব তুঙ্গে। এই প্রসঙ্গে পরিচালক কমিটি পক্ষ থেকে অভিযোগ ওঠে, বর্তমান সম্পাদক পল হাসান মোটা অঙ্কের টাকা তছরূপ করেছে৷ এমনকি কোনও কাজ করেননি সে। কাজ না করেই টাকা নয়ছয় করেছে ওই ব্যক্তি। এই অভিযোগ নিয়ে রবিবার বিকেলে পরিচালন সমিতির পক্ষ থেকে একটি জরুরী বৈঠক ডাকা হয়।

এই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন মাজারের সভাপতি আক্রাম হোসেন ছাড়াও অন্যান্য সদস্যরা। সকলের উপস্থিতিতে সম্পাদক হিসাবে নির্বাচিত করা হয় মহম্মদ জালাল উদ্দিনকে। অন্যদিকে, এই প্রসঙ্গে পরিচালক কমিটির সদস্য মহম্মদ মইনূর বলেন, ‘‘বিদায়ী সম্পাদক পল হাসান মোটা অঙ্কের টাকা তছরূপ করেছে। এই কারণে তাঁকে সরিয়ে নতুন সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়। শুধু তাই নয়, কোনও মাসেই বৈঠক করত না৷ আজও বৈঠকের জন্য চিঠি দেওয়া হয়৷ কিন্তু তিনি চিঠি গ্রহণ করেনি। তাই সভাপতি উপস্থিতিতে সম্পাদক পল হাসানকে পদ থেকে সরিয়ে নতুন সম্পাদক নিযুক্ত করা হয় মাজারে। আমাদের মাজারে প্রতি বছরই সম্পাদকের জন্য বৈঠক হয়। ২৩ মাস ধরে পল হাসান রয়েছেন।’’

অন্যদিকে, নব নির্বাচিত সম্পাদক মহম্মদ জালাল উদ্দিন বলেন, ‘‘আমরা নিয়ম-রীতি মেনে মাজার পরিচালনা করে থাকি৷ নতুন যে আসে তাকেও সেভাবেই নিয়ম মেনে এগোতে হয়৷ এটাই নিয়ম৷’’ পাশাপাশি, বর্তমান সম্পাদক পল হাসান বলেন, ‘‘যারা বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বেশির ভাগই দিনমুজুরের কাজ করেন। হয়তো পাঁচ সাত জন সদস্য ছিল। তবে আমার বিরুদ্ধে যা কিছু অভিযোগ করা হচ্ছে সম্পূর্ণ মিথ্যে। আমাদের গ্রামে প্রচুর সদস্য রয়েছেন। আমি নতুন করে বৈঠক ডাকব৷ সেই বৈঠকেই যা সিদ্ধান্ত নেওয়ার নেওয়া হবে।’’ আর যারা এই ধরনের কাজ করেছেন তাদের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলেও তিনি জানান৷

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প