কৌশিক চট্টোপাধ্যায়, রায়গঞ্জ: বাংলাদেশ সীমান্ত লাগোয়া পাঁচ কিলোমিটারেরমধ্যে গম চাষে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে৷ এই আশঙ্কায় আলু, ডাল, সরষে ও তিল চাষে পরামর্শ দিয়েছেন উত্তর দিনাজপুর জেলা কৃষি আধিকারিকেরা।

সীমান্তবর্তী পাঁচ কিলোমিটার এলাকার চাষীদের আলু, মুসুর ডাল, সরিষা, তিল সহ অন্যান্য ফসল চাষ করার জন্য পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে চাষীদের বিনামূল্যে বীজ ও সার দেওয়ার পরিকল্পনা নিয়েছে কৃষি দফতর।

গত বছর বাংলাদেশে ব্যাপকভাবে গমে ঝলসা রোগ দেখা দেয়। এর ফলে ব্যাপক ক্ষতি হয় গম চাষে। ম্যাগনাপোরথে ওরিজে টিটিকাম নামে এই ছত্রাক এই রোগের জন্য দায়ী। প্রায় পাঁচ কিমি এই ছত্রাক বাতাসে ভেসে চলে আসতে পারে। সে কারণেই উত্তর দিনাজপুর জেলার করণদিঘি, গোয়ালপোখর ১, ইসলামপুর, চোপড়া সহ মোট সাতটি ব্লকে সীমান্ত এলাকার পাঁচ কিলোমিটারের মধ্যে গম চাষ করতে চাষীদের নিষেধ করেছেন কৃষি আধিকারিকেরা।

এই ছত্রাকের আক্রমণে বিঘার পর বিঘা জমির উৎপাদিত গম ঝলসে নষ্ট হয়ে যায়। গম গাছগুলিও শুকিয়ে মারা যায়। একবার এই রোগ দেখা দিলে ওই জমিতে আর গম চাষ করতে পারে না কৃষকেরা।

২০১৬ সালে বাংলাদেশে এই রোগের কারণে প্রায় ১৫ হাজার হেক্টর জমির গম নষ্ট হয়ে যায়। সেজন্য এই রোগকে বাংলাদেশে ভয়াবহ বিস্ফোরন বলে অবিহিত করেছেন কৃষি দফতরের আধিকারিকেরা। এই জেলার সীমান্ত লাগোয়া পাঁচ কিলোমিটারের মধ্যে প্রায় ২২ হাজার ৫০ হেক্টর জমিতে গম চাষ করেছিল কৃষকেরা।

উত্তর দিনাজপুর জেলা কৃষি দফতরের সহ কৃষি অধিকর্তা (বিষয়বস্তু) শ্রীকান্ত সিনহা জানান, গত বছর বাংলাদেশে এই রোগ ব্যাপক আকার নেওয়ায় এই জেলার সীমান্তবর্তী এলাকার কৃষকদের গম চাষ বন্ধ রেখে মুসুর, ডাল, আলু, তিল, সরিষা সহ অন্যান্য ফসল চাষ করার জন্য আবেদন করা হয়েছে। কৃষকদের বিনামূল্যে বীজ ও সার দেওয়ার পরিকল্পনা নিয়েছে কৃষি দফতর।