মুম্বই: বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাস মহামারীর আকার ধারণ করেছে ৷ এই অবস্থায় করোনা ভাইরাস যাতে গোটা দেশে ছড়িয়ে না পড়ে তারজন্য গত সপ্তাহ থেকে ২১ দিনের লক ডাইন শুরু হয়েছে ৷ তবে তার জেরে রীতিমতো বিপাকে পড়েছে জনগণ৷ সেই কথা ভেবে একে একে বেশ কিছু পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে৷ যেমন আর্থিক সংকটে পড়া ঋণ গ্রহীতাদের অসুবিধার কথা মাথায় রেখে রিজার্ভ ব্যাংক মেয়াদি ঋণের উপর ইএমআই দেওয়ার ক্ষেত্রে তিন মাসের মোরাটোরিয়াম ঘোষণা করেছে৷

কিন্তু এর মাধ্যমে প্রকৃত সুবিধা কি তা নিয়ে কিছু ধন্দ রয়েছে৷অনেকে মনে করেছিলেন এটার অর্থ তিন মাসের ইএমআই মকুব করা হয়েছে তা কিন্তু নয়৷এদিকে কিছু কিছু ব্যাংক ওই ঘোষণার পরেও ইএমআই কেটেছে বলেও অভিযোগ শোনা গিয়েছে৷

এবার বুঝে নেওয়া যাক রিজার্ভ ব্যাংকের তিন মাস ইএমআই মোরাটোরিয়াম ব্যাপারটি কি ?

প্রথমত, বুঝে নেওয়া দরকার এটা কিন্তু ইএমআই মকুব নয় বরং বলা যেতে পারে তিন মাসের জন্য স্থগিত করা হয়েছে। মানে তিন মাসের জন্য ইএমআই দিতে হবে না। উল্টে এই জমা স্থগিত রাখা ইএমআই পরে সুদ সহ শোধ দিতেই হবে। তবে সেটা কী ভাবে দিতে সেটা ব্যাংক বা ঋণদাতা ঠিক করবে। বিভিন্ন ব্যাংকের এই পদ্ধতি আলাদাও হতে পারে। উদাহরণ স্বরূপ কেউ পুরো ঋণের মেয়াদ তিন মাস বাড়িয়ে দিতে পারে। আবার কেউ অবশিষ্ট সময়ের ইএমআই-তে ওই তিন মাসের বকেয়া ইএমআই-এর অর্থ সমান ভাগে ভাগ করে দিতে পারে।

দ্বিতীয়ত, রিজা্র্ভ ব্যাংকের ঘোষণা অনুসারে সব ধরনের মেয়াদি ঋণের ক্ষেত্রে এই নিয়ম প্রযোজ্য হবে। অর্থাৎ তা বাড়ি, গাড়ি, শিক্ষা ইত্যাদির জন্য নেওয়া ঋণ হতে পারে।আবার ব্যক্তিগত ঋণের ক্ষেত্রেও হবে মানে কেউ যদি ফ্রিজ, টিভি, মোবাইল, ল্যাপটপ, কম্পিউটারের ইত্যাদি ভোগ্যপণ্যের ঋণের ক্ষেতেও এই নিয়ম চলবে।

তৃতীয়ত, বুঝে নেওয়া দরকার সুদ এবং আসল অর্থাৎ পুরো ইএমআইটাই এক্ষেত্রে তিন মাসের জন্য দিতে হবে না কিনা। ঘোষণা অনুসারে এ বছরের পয়লা মার্চ থেকে যে সব ঋণের ইএমআই দেওয়ার ছিল সেগুলির ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য হবে সুদ ও আসল উভয়ই। ব্যাংক ঘোষণা করলেই এই সুবিধা মিলবে।

চতুর্থত, বুঝে নেওয়া যাক কোন ধরনের ব্যাংকে এটা প্রযোজ্য হবে৷সব রকম সরকারি ও বেসরকারি ব্যাংকই এই সুযোগ দেবে। অর্থাৎ যে কোনও বাণিজ্যিক ব্যাংকের পাশাপাশি গ্রামীণ ব্যাংক, সমবায় ব্যাংকও এর আওতায় পড়ছে। এছাড়া ঘোষণা অনুসারে যে কোনও ঋণদানকারী আর্থিক প্রতিষ্ঠান এবং গৃহঋণ প্রদানকারী সংস্থাও এর আওতায় পড়বে।

পঞ্চমত, এরপরেও কি ইএমআই টাকা কাটতে পারে৷এক্ষেত্রে রিজার্ভ ব্যাংক শুধুমাত্র ব্যাংকগুলিকে প্রস্তাব দিয়েছে।এরপর প্রত্যেক ব্যাংক আলাদা ভাবে সিদ্ধান্ত নেবে। এজন্য সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের বোর্ডে বিষয়টিকে অনুমোদন করিয়ে নিতে হবে ৷ তার অর্থ, কারও ইএমআই-এর কাটার তারিখ এসে গেলে এবং তখনও পর্যন্ত এই ব্যাপারে ওই ব্যাংক সিদ্ধান্ত না নিতে পারলে স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতেই ইএমআই কেটে নেবে।

ষষ্ঠত, রিজার্ভ ব্যাংকের ঘোষণা অনুসারে কেউ যদি এই মোরাটোরিয়ামের সুযোগ নেন অর্থাৎ তিন মাস বাদে ফের বকেয়া ইএমআই দিতে থাকেন তাহলেও কিন্তু তাঁর ক্রে়ডিট স্কোর খারাপ হবে না৷