মুম্বই: বৃহস্পতিবার সেনসেক্স ৫০,০০০ স্তর পেরিয়ে রেকর্ড উচ্চতায় যেতে দেখা গিয়েছিল। কিন্তু শুক্রবার শেয়ারবাজারের পক্ষে দিনটা ভালো গেল না। এদিন রীতিমতো নেমে গেল শেয়ার সূচক। বিএসই সেনসেক্স ৭৪৬.২২ পয়েন্ট বা ১.৫ শতাংশ নেমে দিনের শেষে এদিন অবস্থান করছে ৪৮,৮৭৮.৫৪ পয়েন্টে। অন্যদিকে নিফটি ২১৮.৪৫ পয়েন্ট নেমে অবস্থান করছিল ১৪,৩৭১.৯০ পয়েন্টে। সূচকের পতনের প্রধান কারণ বাজার সংশোধন বলে মনে করা হচ্ছে। দাম বেড়ে যাওয়া শেয়ার বেচে লগ্নিকারীদের লাভের টাকা ঘরে তোলার প্রবণতা দেখা গিয়েছে।

এছাড়া আরও কিছু কারণ রয়েছে শেয়ার সূচকের রেকর্ড উচ্চতা থেকে এমনভাবে পতনের জন্য। আর্থিক এবং ফার্মাসিউটিক্যাল সংস্থার শেয়ারের দাম এদিন বাজারে রীতিমতো ওঠানামা করতে দেখা গিয়েছে। অন্যদিকে
রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজের শেয়ারের দাম প্রায় ২.৫ শতাংশ নেমে যায় ।

এদিন নিফটি ব্যাংক ইন্ডেক্স ৩.২ শতাংশ এবং নিফটি মেটাল ইন্ডেক্স ৩.৯ শতাংশ নেমেছে। ব্যাংকের শেয়ারগুলির মধ্যে অ্যাক্সিস ব্যাংক প্রায় ৫ শতাংশ নেমেছে। অন্যদিকে স্টেট ব্যাংক, আইসিআইসিআই ব্যাংক, ইন্ডাসইন্ড ব্যাংক নেমেছে ৩-৪ শতাংশ।

শেয়ার বিশেষজ্ঞদের মতে, স্বল্প মেয়াদে শেয়ারবাজারে কিছুটা সংশোধন হচ্ছে। তাছাড়া লগ্নিকারীরা আসন্ন বাজেটের আগে একটু সতর্কভাবে থাকতে চাইছেন। ফলে বাজার বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, আগামী কয়েকদিন কিছুটা অস্থিরতা থাকবে। বিশ্ববাজারে দুর্বলতা প্রভাব ফেলেছে এ দেশের বাজারে।

চিন এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় ফের করোনা মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে, যা অবশ্যই নার্ভাস করছে লগ্নিকারীদের। এ বিষয়ে উল্লেখ্য চিনে ফের যাতায়াত নিয়ন্ত্রণ করছে বেজিং এবং অন্যান্য শহরেও করোনা করে মাথা চারা দেওয়ায়।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।