নয়াদিল্লি: ২৩মে ঠিক কী হতে চলেছে তার আভাস আগেই দিয়েছিল বিভিন্ন বুথ ফেরৎ সমীক্ষাগুলি৷ তাতে গেরুয়া শিবিরের মনোবল আরও কয়েকগুণ বেড়ে গেলেও, এই সব সমীক্ষার ফলাফলকে পাত্তা দিতে চায়নি বিরোধী দলগুলি৷ যদিও অশনি সংকেতের আভাস অনেকেই পেয়েছিল৷ দিনের শেষে গণনা জানাচ্ছে, এনডিএ ৩৫৩, ইউপিএ ৮৫ এবং অন্যান্য ১০৪, এবং বিজেপি একাই ২৭২ আসনে সংখ্যাগরিষ্ঠ৷ আবার বাংলার ছবিটাও যেন অনেকটাই গেরুয়া শিবিরের হয়েই কথা বলেছে৷ তৃণমূল ২২, বিজেপি ১৮, কংগ্রেস ২ এবং বাম শিবির ০৷ রাজ্য থেকে দেশে এই যে গেরুয়া ঝড় তাতে স্বভাবতই খুশি বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্ব৷

২৩মে সন্ধ্যা হওয়ার আগেই জানা গিয়েছিল দেশবাসীর উদ্দেশ্যে ভাষণ দেবেন মোদী৷ এবং সেই ভাষণ দিতে গিয়েই তিনি এই জয়ের জন্য ১৩০ কোটি ভারতবাসীকে প্রণাম জানান৷ তিনি বলেন, যদি কারও জয় হয়ে থাকে, তাহলে সেই জয় ভারতের, সেই জয় গণতন্ত্রের, সেই জয় জনতার। যারা ভোটপ্রক্রিয়া সুষ্ঠভাবে হতে সাহায্য করেছে, তাদের সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি আরও বলেন, স্বাধীনতার পর এবারই সবথেকে বেশি ভোট পড়েছে। এটা নজিরবিহীন ঘটনা। দেশের মানুষ প্রমাণ করে দিয়েছে যে তারা দেশের পক্ষে ভোট দিয়েছেন৷

ফাইল ছবি৷

বিজেপির জয়ের কাণ্ডারি হিসাবে উঠে বারবারই উঠে এসেছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নাম৷ সেনাপতি অমিত শাহের সঙ্গে মিলে দলকে জেতানোর দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নেন নমো৷ তাঁর ক্লান্ত পরিশ্রম ও অমিতের রণকৌশলে ভর করে বিজেপি এবার ৩০০ পার করেই ফেলেছে৷ তারপরেই মোদীর প্রশংসায় পঞ্চমুখ সহযোগী দলগুলি৷ বিজেপির দীর্ঘদিনের সঙ্গী শিবসেনা মোদীর স্তুতি করে জানিয়েছে, ‘গোটা দেশ মোদীময়’৷

ভোটের ফলাফল দেখে শিবসেনার সাংসদ সঞ্জয় রাউতের মতে, এনডিএ’র জয় বিরোধীদের গালে থাপ্পড় মেরেছে৷ ভোটের আগে বিরোধীরা রাফায়েল নিয়ে মোদীর বিরুদ্ধে অনেক বিভ্রান্তি ছড়িয়েছে৷ সময় এসেছে সত্যিটাকে মেনে নেওয়ার৷ আর সত্যি এটাই যে মোদীর সমতুল্য কোনও নেতা এখন নেই৷ আজকের রায়ের পর পরিস্কার আগামী ২৫ বছর মোদীর বিকল্প কোনও নেতা উঠে আসবে না৷ তিনি আরও জানান, গোটা দেশ মোদীর নেতৃত্বের উপর ভরসা রেখেছে৷ তাঁর নেতৃত্বেই দেশ আগামী পাঁচ বছর বিকাশের পথে এগিয়ে যাবে৷