স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: সোমবার কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে প্রয়াত হলেন লোকসভার প্রাক্তন অধ্যক্ষ সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়৷ তাঁর মরদেহ দান করা হয়েছে এসএসকেএম হাসপাতালে৷ ২০১০ সালের ২০ জানুয়ারি রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসুর মৃত্যুর পরও তাঁর দেহ দান করা হয়েছিল এই হাসপাতালে৷

১৯৬৮ সালে সিপিএম পার্টির সদস্য হন সোমনাথবাবু৷ ১৯৭১ সালে নির্দল প্রার্থী হিসেবে প্রথমবার সাংসদ নির্বাচিত হয়েছিলেন৷ ২০০৮ সালে সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়কে দল থেকে বহিষ্কার করে তৎকালীন সিপিএম নেতৃত্ব৷ এরপরও জ্যোতি বসুর সঙ্গে তাঁর গুরু-শিষ্যের সম্পর্ক বজায় ছিল৷ আট বছর পর আগেই সোমনাথ চট্টোপাধ্যায় তাঁর রাজনৈতিক গুরুকে হারিয়েছেন৷ সোমবার নিজের মৃত্যুর পর আবার গুরুর কাছেই ফিরে যাচ্ছেন তিনি৷

পড়ুন: “সংসদীয় গণতন্ত্রকে এক অন্য স্তরে নিয়ে গিয়েছিলেন সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়”

এসএসকেএম হাসপাতাল সূত্রে খবর, ২০১০ সালের ২০ জানুয়ারি বার্ধক্যজনিত রোগে জ্যোতি বসুর মৃত্যুর পর এসএসকেএম হাসপাতালের অ্যানাটমি বিভাগে তাঁর দেহ রাখা হয়৷ আর আট বছর পর প্রয়াত সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়দের দেহ হাসপাতালের ইউনিভার্সিটি কলেজ অফ মেডিসিন বিল্ডিং এর অ্যানাটমি বিভাগেই রাখা হবে৷ অর্থাৎ এসএসকেএম হাসপাতালে রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা কমিউনিস্ট নেতা জ্যোতি বসুর দেহর পাশেই রাখা হবে প্রয়াত লোকসভার প্রাক্তন অধ্যক্ষ৷ তাঁর চোখ দু’টি দেওয়া হয়েছে প্রিয়ংম্বদা বিড়লা আই হাসপাতালকে৷ আর এসএসকেএম হাসপাতালে ত্বক সংরক্ষণ করা হবে বলে জানা গিয়েছে।