দেবযানী সরকার, কলকাতা: সারা দেশের নজরে তৃণমূল কংগ্রেসের অ-বিজেপি ব্রিগেড সমাবেশে৷ শনিবার ওই মঞ্চে নক্ষত্র সমাবেশ হতে চলেছে৷ সেই নক্ষত্রদের মধ্যেই আলাদা করে নজর কাড়বেন প্রতিবেশী রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী৷ এমন এক দলের তিনি নেতা যে দল জড়িয়েছিল চুম্বন প্রতিযোগিতা কাণ্ডে৷ দলীয় বিধায়কদের প্রত্যক্ষ মদতে হয়েছিল সেই প্রতিযোগিতা৷

তৃণমূল কংগ্রেসের অ-বিজেপি সর্বভারতীয় নেতাদের সমারোহে গমগম করতে চলেছে ব্রিগেড গ্রাউন্ড৷ তাতে উপস্থিত হতে চলেছেন ঝাড়খণ্ডের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন৷ আর এখানেই চমক৷ কারণ তাঁর দলেরই অন্যতম শীর্ষ নেতা স্টিফেন মারান্ডির প্রত্যক্ষ উপস্থিতিতে ঝড়খণ্ডেই হয়েছিল আদিবাসীদের চুম্বন প্রতিযোগিতা৷ দেশজুড়ে ছড়িয়েছিল বিতর্ক৷ সেই অনুষ্ঠানের আরও এক আয়োজক ছিলেন ঝাড়খণ্ড মুক্তিমোর্চার বিধায়ক সাইমন মারান্ডিও৷

এমনই চুম্বন বিতর্কে জড়ানো দলের নেতা তথা প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন ব্রিগেডের সমাবেশে আনছেন মমতা৷ যিনি সম্প্রতি ঘোষণা করেছেন ঝাড়খণ্ডেও অ-বিজেপি শক্তি বৃদ্ধিতে তৃণমূল ঝাঁপিয়ে পড়বে৷ যা নিয়ে আড়ালে মুচকি হাসছেন রাজ্যের বিরোধীরা৷

২০১৭ সালের ডিসেম্বর মাস৷ বীরভূম সংলগ্ন ঝাড়খন্ডের পাকুড়ের দুমারিয়ায় আদিবাসী ছেলেমেয়েদের নিয়ে চুম্বন প্রতিযোগিতা আয়োজন করে করে চরম বিতর্কে জড়িয়েছিলেন ঝাড়খন্ড মুক্তি মোর্চার (জেএমএম) দুই বিধায়ক স্টিফেন মারান্ডি ও সাইমন মারান্ডি৷ তাঁদের যুক্তি ছিল, প্রকাশ্যে নিজেদের চুম্বনের মাধ্যমে আদিবাসী ছেলেমেয়েদের মধ্যে এ নিয়ে দ্বিধা, সংশয়, ভয় কেটে যাবে।

আদিবাসী দম্পতিদের মধ্যে বোঝাপড়া, গভীরতা দৃঢ় হবে, বিবাহ বিচ্ছেদ কমবে বলেও দাবি করেন তাঁরা। কয়েকশো লোক সেই প্রতিযোগিতায় হাজির ছিল। তিন সেরা চুম্বনরত আদিবাসী দম্পতিকে সেখানে পুরস্কারও দেওয়া হয়। এই ঘটনার পর দলের অন্দরেই তাঁদের বহিষ্কারের জোরালো দাবি ওঠে৷

দেশজুড়ে ছড়িয়েছিল সেই ভিডিও৷ আদিবাসী প্রথা আদৌ এমন কিনা সেই নিয়ে প্রশ্ন উঠেছিল৷ তবে অবিচলিতই ছিলেন স্টিফেন মারান্ডি৷ তিনি জেএমএমের সুপ্রিমো তথা প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেনের কাছের লোক৷

এদিকে মমতার অ-বিজেপি মহা সমাবেশে সেই জেএমএমের উপস্থিতি নিয়ে বিজেপি নেতা রাহুল সিনহা বলেন, “ব্রিগেড ভরাতে ওরা যেখান থেকে পারছে কুড়িয়ে-কাচিয়ে আবর্জনা নিয়ে আসছে৷ বোঝাই যাচ্ছে এটা একটা সার্কাস হচ্ছে৷ “

তবে তৃণমূল নীরব৷