সৌপ্তিক বন্দ্যোপাধ্যায় : শুধু কলকাতা নয় বিগত কয়েকদিনে বারবার মাটির খুব কাছে চলে আসছে মেঘ। উত্তরবঙ্গে এই বজ্রপাতের পরিমান কম হলেও দেখা যাচ্ছে, বিগত কয়েকদিনে ব্যাপক বজ্রপাতের সম্ভাবনা তৈরি হচ্ছে প্রথমে পশ্চিমের জেলায় ক্রমে কলকাতা ও তার পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে। বারবার উস্কে দিচ্ছে সম্প্রতি বিহারের বজ্রপাতের মর্মান্তিক ঘটনার কথা।

যেমন সোমবার। বিকেল সাড়ে তিনটে নাগাদ হাওয়া অফিস জানায় বাঁকুড়া, পশ্চিম বর্ধমান ও বীরভূমে উল্লম্ব মেঘ তৈরি হয়েছে যার জেরে মাটির কাছে চলে এসেছে মেঘ। অন্তত ৩০ শতাংশ বজ্রপাতের সম্ভাবনার সতর্কতা দেয় হাওয়া অফিস। এর আগের দিন কলকাতায় ৬০ শতাংশ এমন বজ্রপাতের সম্ভাবনা তৈরি হয় কলকাতায়। তাঁর আগের দিন সমগ্র পশ্চিমের জেলাগুলিতে অন্তত ৬টি জেলায় এমন বজ্রপাতের সম্ভাবনার কথা জানায় হাওয়া অফিস। এমন কেন হচ্ছে? আবহাওয়াবিদরা জানাচ্ছেন, ‘কালবৈশাখীর সময় এমন বড় বড় মেঘ তৈরি হতে দেখা গেলেও বর্ষাকালে সচরাচর তা দেখা যায় না। এবারে তা হচ্ছে। মৌসুমি অক্ষরেখা উত্তরবঙ্গ থেকে ধীরে ধীরে দক্ষিণে আসছে। বঙ্গোপসাগর থেকে ঢুকছে জোরালো মৌসুমি বায়ু। সেই জলীয় বাষ্পপূর্ণ হাওয়া অক্ষরেখার প্রভাবে দ্রুত ঘনীভূত হয়ে এমন বজ্রমেঘ তৈরি করছে।’

ঘটনা হল এতদিন শুধুই উত্তরবঙ্গে হয়েছে প্রবল বৃষ্টি। এবার বৃহস্পতিবার থেকে ফের বাড়বে বৃষ্টির দাপট। এবং এবার তা উত্তর ও দক্ষিণ উভয় বঙ্গেই তা বাড়বে বলে জানাচ্ছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। এই পূর্বাভাসেই স্পষ্ট হয়ে যাচ্ছে আবহাওয়াবিদদের ব্যখ্যা। প্রসঙ্গত মৌসুমী বায়ু সক্রিয় হওয়ার পর থেকেই নিয়মিত উত্তর থেকে দক্ষিণ দুই বঙ্গেই বৃষ্টি হচ্ছে। কোথাও কম, কোথাও বেশি৷ আজ বিক্ষিপ্ত বৃষ্টি দক্ষিণবঙ্গের প্রায় সব জেলাগুলিতেই। দক্ষিণবঙ্গে বৃষ্টির সঙ্গে সঙ্গে বজ্রপাতের সম্ভাবনা আছে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া দফতর। কলকাতাতেও বারেবারে বজ্রবিদ্যুৎ-সহ হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি হবে। এদিকে আলিপুরদুয়ারে আজও ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস৷ বিক্ষিপ্ত মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টি দার্জিলিঙ। কালিম্পং, জলপাইগুড়ি, কোচবিহারেও বিক্ষিপ্ত বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে। উত্তরবঙ্গে ভারী বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস থাকলেও বিশেষ বজ্রপাতের সম্ভবনা নেই। কিন্তু দক্ষিণবঙ্গের মতো মালদহ ও দুই দিনাজপুরে বজ্রবিদ্যুৎ-সহ হালকা বৃষ্টি হতে পারে। উত্তরবঙ্গের এই প্রবল বৃষ্টিপাত শুক্রবার পর্যন্ত জারি থাকবে। ৷

এদিকে মঙ্গলবার কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২৭.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের থেকে এক ডিগ্রি বেশি। সোমবার শহরের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩১.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের থেকে এক ডিগ্রি কম। এই তাপমাত্রা বৃষ্টি না হলে বেড়ে আজ মঙ্গলবার ৩৩ ডিগ্রি সেলসিয়াসে পৌঁছে যেতে পারে বলে জানাচ্ছে হাওয়া অফিস। আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমান যথারীতি অনেক বেশি। সর্বোচ্চ ৯৫ শতাংশ, সর্বনিম্ন ৭৯ শতাংশ। বৃষ্টি হয়েছে ০.৯ মিলিমিটার। দমদমে ৪ ও সল্টলেকে ১ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। রবিবার সকালে কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২৪.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস, স্বাভাবিকের থেকে দুই ডিগ্রি কম। শনিবার শহরের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ৩৩.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের থেকে এই ডিগ্রি বেশি। শনিবার বৃষ্টি হয় ৫৮.৮ মিলিমিটার, ওইদিন রাত সাড়ে আটটা থেকে রবিবার সকাল ছ’টা পর্যন্ত বৃষ্টি হয়েছিল ৫৬.১ মিলিমিটার। আর্দ্রতার পরিমান ছিল সর্বোচ্চ ৯৭ শতাংশ, সর্বনিম্ন ৬৮ শতাংশ। দমদমে রবিবার ৪৩ মিলিমিটার, সল্টলেকে ৪২.২ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV