স্টাফ রিপোর্টার, ব্যারাকপুর: “সব হিন্দুই জন্ম সূত্রে ভারতীয়। আর কোন হিন্দুকেই তা প্রমাণ করতে কোনও কাগজের জন্য কোথাও ছুটতে হবে না।” এমনটাই আশ্বাস দিলেন রাজ্য বিজেপির নেতা রাহুল সিনহা।

তাঁর দাবি, কেউ যদি বাংলাদেশ থেকেও আসেন, তাহলেও জন্মসূত্রে হিন্দু হলেই তাহলে তিনি ভারতের নাগরিক।” এন আর সি প্রসঙ্গে এই ভাষাতেই সাধারণ মানুষ আশ্বস্ত করেছেন তিনি। মঙ্গলবার বিজয়া দশমীর বিকেলে উত্তর ২৪ পরগনার আশোকনগরে সরকার বাড়ির পুজোতে অনুষ্ঠিত ঐতিহ্যপূর্ণ বাইচ প্রতিযোগিতায় এসে এনআরসি প্রসঙ্গে এই কথা বলেন তিনি।

এছাড়া রাজ্য সরকারকে তোপ দেগে রাহুল সিনহা বলেন, “দূর্গা পূজার বিসর্জন বন্ধ করে মহরমের মিছিল করা হয়েছিল, সাধারণ জনগণের টাকায় তারই প্রায়শ্চিত্ত করছে সরকার। এছাড়াও এনআরসি নিয়ে তাঁর বক্তব্য, ”রাজ্যের হিন্দু বাসিন্দা যারা বা বাংলাদেশ থেকে আসা হিন্দু, যারা আজকে এসেছে সেও এ দেশের নাগরিক আর আগামী ৫০ বছর বাদে যদি কোনও হিন্দু ভারতে আসেন তাহলেও তিনি ধর্ম সূত্রে ও জন্ম সূত্রে ভারতের নাগরিক হবেন। এই নিয়ে বিভ্রান্তির কোনও অবকাশ নেই। তাছাড়া আগে হিন্দু সহ যত হিন্দু শরণার্থী আছেন তাদের আগে নাগরিকত্ব হবে আর অনুপ্রবেশকারীদের চিহ্নিত করে যা ব্যবস্থা নেওয়ার তা সরকার নেবে।”

পুরনো ঐতিহ্যকে ধরে রাখতেই রীতি মেনে বিজয়া দশমীর বিকেলে নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয় সরকার বাড়ির পুকুরে। সকল ধর্মের হাজার হাজার মানুষের ভিড়ে আনন্দ-উল্লাসে জমে ওঠে এই নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা। সরকার বাড়ির এই ঐতিহ্যের বাইচ উপলক্ষে রাস্তার দু পাশে বসে মেলাও।

বাংলাদেশের ফরিদপুর জেলায় নদীর বুকে অনুষ্ঠিত হতো নৌকা বাইচ। ১৩৯ বছর আগে সুদূর বাংলাদেশ থেকে এসে সরকার পরিবারের সদস্যরা এদেশের কুমড়ো বিজয়নগর এলাকায় এসে পুরনো ঐতিহ্যকে ধরে রাখতে প্রতিবছরের ন্যায় এবছর বিজয়া দশমীর বিকেলে নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা হয়। এই প্রতিযোগিতা দেখতে পুকুর পাড়ে কয়েক হাজার ছোট থেকে বড় সব ধরনের মানুষের সমাগম ছিল চোখে পড়ার মতো। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিজেপি কেন্দ্রীয় কমিটির সম্পাদক রাহুল সিনহা।