কলকাতা: সদ্য প্রয়াত ‘থ্রি ডব্লিউ’জ-এর শেষ সদস্য এভার্টন উইকসকে সম্মান জানাতে চলেছে সিএবি৷ ইডেন গার্ডেন্সের ক্রিকেট মিউজিয়ামে ঠাঁই পেতে চলেছে ক্যারিবিয়ান কিংবদন্তির মূর্তি। বৃহস্পতিবার এমনটাই জানিয়েছেন সিএবি প্রেসিডেন্ট জগমোহন ডালমিয়া৷

সিএবি সভাপতি এদিন জানান, ‘আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এভার্টন উইকস একজন কিংবদন্তি। বিশ্বের ক্রীড়াক্ষেত্রে এটা বিরাট ক্ষতি৷ ইডেনের সঙ্গে ওঁনার বিশেষ সম্পর্ক৷ স্বাধীন ভারতে ইডেনে প্রথম আন্তর্জাতিক সেঞ্চুরি হাকিয়েছিলেন উইকস। আমরা ঠিক করেছি ইডেনের ক্রিকেট মিউজিয়ামে ওঁর নাম সুস্পষ্টভাবে লেখা হবে। অতিমারীর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেই এই কাজ শুরু হবে।’

অভিষেক আরও বলেন, ‘আমাদের আরও পরিকল্পনা রয়েছে৷ বার্ষিক পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে আমরা ওই টেস্ট ম্যাচের কিছু স্মরণীয় মুহূর্তে তুলে ধরতে চাই৷ এই ভাবেই আমরা ওই ঐতিহাসিক টেস্ট ম্যাচটি স্মরণ করতে করব৷’

স্বাধীন ভারতে ইডেনে প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে ইডেনে আন্তর্জাতিক সেঞ্চুরি করেছিলেন উইকস৷ ঐতিহাসিক ওই টেস্টের দুই ইনিংসে সেঞ্চুরি এসেছিল উইকসের ব্যাট থেকে৷ ১৬২ ও ১০১ রানের ইনিংস খেলেছিলেন ক্যারিবিয়ান কিংবদন্তি৷ এই টেস্টে অভিষেক হয়েছিল বাঙালি পেসার সুধাংশু মন্টু বন্দ্যোপাধ্যায়ের৷ যিনি সুটে ব্যানার্জি নামে পরিচিত৷ কেরিয়ারে ওই একটি মাত্র ম্যাচই খেলেছিলেন তিনি৷ এই টেস্ট পাঁচ উইকেট নেওয়ার পরেও পরের ম্যাচে জায়গা হয়নি তাঁর৷

ক্লাইড ওয়ালকট, ফ্র্যাঙ্ক ওরেল এবং স্যার এভার্টন উইকস। বিশ্ব ক্রিকেটে এই বার্বাডোজ ত্রয়ী পরিচিত ছিলেন ‘থ্রি ডব্লিউ’জ নামে। বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তী ক্রিকেটে ব্যাট হাতে শাসন করেছিলেন এই তিন কিংবদন্তি। ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে ৪৮টি টেস্ট খেলা এভার্টন উইকস আবার এই তিন ব্যাটসম্যানের মধ্যে সেরা হিসেবে বিবেচিত হতেন। ওয়ালকট, ওরেল চলে গিয়েছিলেন আগেই। ‘থ্রি ডব্লিউ’জ-এর একমাত্র সদস্য হিসেবে এতদিন জীবিত ছিলেন কেবল স্যার এভার্টন উইকস। বুধবার পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করলেন তিনিও।

সিএবি সচিব স্নেহাশিস গঙ্গোপাধ্যায় জানান, ‘এভার্টন উইকসের মত প্রতিভা খুব কম আসেন। কলকাতার মানুষ ভাগ্যবান যে, ওঁর মত একজন ক্রীড়াব্যক্তিত্বের খেলা স্ব-চক্ষে দেখেছে। বার্ষিক পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে ওঁর অবদান স্মরণ করা হবে।’

ও১৯৪৮-৫৮ সময়কালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে ৪৮ টেস্টে ৪,৪৫৫ রান করেছিলেন উইকস। ব্যাটিং গড় ৫৮.৬২। আন্তর্জাতিক শতরান ১৫টি। আর প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে ১৫২ ম্যাচে ৫৫.৩৪ ব্যাটিং গড়ে উইকসের সংগ্রহে ছিল ১২,০১০ রান। শতরান ৩৬টি, সর্বোচ্চ অপরাজিত ৩০৪। ১৯৪৮ ইংল্যান্ড এবং ভারতের বিরুদ্ধে উইকসের টানা ৫টি টেস্ট সেঞ্চুরির বিশ্বরেকর্ড আজও অক্ষত।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ