তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: মেলা শেষ হয়েছে সেই কবেই। কিন্তু মেলায় খাবার দোকানগুলিতে ব্যবহৃত থার্মোকলের থালা, বাটি, ডিমের খোসা, প্লাষ্টিকের বোতল, চায়ের কাপের স্তুপ তৈরী হয়েছে। এই অবস্থায় চরম সমস্যায় বাঁকুড়ার সোনামুখী ব্লক এলাকার বেলোয়া মাঠে।

পৌষ সংক্রান্তি উপলক্ষ্যে দামোদর নদী তীরবর্তী বেলোয়া মাঠে ফি বছর মেলা বসে। মকর সংক্রান্তির দিন শুরু হওয়া তিন দিনের এই মেলায় সোনামুখী ছাড়াও পাত্রসায়র, বড়জোড়া ব্লক এলাকার একাংশের মিলিয়ে কয়েক হাজার মানুষ এখানে ভীড় জমান। নানান ধরণের অসংখ্য দোকানের সঙ্গে খাবারের দোকানের সংখ্যাও কম থাকেনা। এই অবস্থায় মেলা শেষের দু’সপ্তাহেরও বেশী সময় পরেও মেলার মাঠ পরিস্কার না হওয়ায় ক্ষোভ বাড়ছে এলাকায়। যত্রতত্র আবর্জনা থেকে ছড়াচ্ছে দুর্গন্ধ। পরিবেশ দূষণের আশঙ্কা করছেন এলাকার মানুষ।

আরও পড়ুন : মদের আসর থেকে বচসা, উত্তপ্ত কাশীপুর

স্থানীয় বাসিন্দা মহেশ চৌধুরী, জ্যোৎস্না দাসরা বলেন, মেলা শেষে থার্মোকলের থালা, বাটি থেকে প্লাষ্টিকজাত নানান জিনিস পড়েছে। সামান্য বাতাস দিলেই তা উড়ে গিয়ে বাড়িতে পড়ছে। সঙ্গে ফেলে দেওয়া খাবারের দুর্গন্ধ তো আছেই। এই অবস্থায় এলাকায় টেকা দায় হয়ে পড়েছে বলে তারা জানান। বার বার বলা সত্ত্বেও মেলা কমিটি থেকে স্থানীয় প্রশাসন কেউই মাঠ পরিস্কারের উদ্যোগ নেয়নি বলে তাদের অভিযোগ। একই অভিযোগ পাশেই বেলোয়া আশ্রমের আবাসিক সাধুসন্তদেরও।

এবিষয়ে সোনামুখী পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি প্রণব রায়কে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, বিষয়টি আমাদেরও নজরে আছে। প্রতি বছরই স্থানীয় গ্রাম পঞ্চায়েত মেলার মাঠ পরিস্কারের কাজ করবে। দ্রুততার সঙ্গে ঐ পঞ্চায়েত যাতে এই কাজ করে সে বিষয়ে তাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।