ভিলনিয়াস: ২০২০ ইউরো কোয়ালিফায়ারে বড় জয় পেল গতবারের চ্যাম্পিয়ন পর্তুগাল৷ দুরন্ত ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো৷ দলকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিলেন পর্তুগিজ ক্যাপ্টেন৷ একাই চার গোল করে মঙ্গলবার রাতে লিথুয়ানিয়ার ৫-১ পর্তুগালকে জেতান সিআর সেভেন।

দেশের হয়ে অষ্টম হ্যাটট্রিক রোনাল্ডো’র৷ কেরিয়ার ৫৪ নম্বর হ্যাটট্রিকের নজির গড়লেন পর্তুগিজ তারকা৷ ম্যাচের সপ্তম মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করে পর্তুগালকে এগিয়ে নেন রোনাল্ডো। ডি-বক্সে ডিফেন্ডার পালিওনিসের হাতে বল লাগলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। গোল করতে ভুল করেন পর্জুগিজ সুপারস্টার৷ সেই সঙ্গে দেশের জার্সিতে আন্তর্জাতিক ফুটবলে ৯০ নম্বর গোলটি করেন সিআর সেভেন৷

প্রথমার্ধের তাঁর পা থেকে আর গোল না-এলে দ্বিতীয়ার্থে ১৬ মিনিটের ব্যবধানে তিন-তিনটি গোল করেন প্রতিপক্ষকে একাই শেষ করে দেন পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড৷ প্রথমার্ধে মাত্র সাত মিনিটে এগিয়ে যাওয়ার পর ব্যবধান বাড়ানোর সুযোগ পেয়েছিলেন রোনাল্ডো৷ কিন্তু তাঁর শট অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়।

২৮ মিনিটে অবশ্য সমতায় ফেরে গ্রুপে শেষে থাকা লিথুয়ানিয়া। কর্নারে ভিতোতাসের হেড পোস্টের ভেতরের কানায় লেগে পর্তুগালের জালে বল জড়িয়ে যায়৷ প্রথমার্ধের শেষ দিকে একের পর এক আক্রমণ করেও গোলের দেখা পায়নি পর্তুগাল। রোনাল্ডো ও ব্রুনোর শট লক্ষ্যভ্রষ্ট হওয়ার পর কারভালহোর হেডও ঠিকানা খুঁজে পায়নি।

৫৭ মিনিটে বের্নার্দো সিলভা গোলরক্ষক বরাবর শট নেওয়ায় পাঁচ মিনিট পর ফের এগিয়ে যায় পর্তুগাল। রোনাল্ডোর শট আটকাতে ঝাঁপিয়ে পড়লেও গোলরক্ষকের গ্লাভসে লেগে বল জালে জড়িয়ে যায়। এরপর বের্নার্দোর ক্রসে গোলমুখে পা-ছুঁইয়ে ৬৫ মিনিটে হ্যাটট্রিক করেন সিআর৭। ইউরোর বাছাই ও মূলপর্ব মিলিয়ে রেকর্ড ৩৪টি গোলের মালিক হন পাঁচবারের বর্ষসেরা ফুটবলার রোনাল্ডো।

ম্যাচের ৭৬ মিনিটে বের্নার্দোর ক্রস থেকেই ম্যাচে নিজের চতুর্থ গোলটি করেন রোনাল্ডো। পর্তুগালের হয়ে তাঁর গোলের সংখ্যা ৯৩টি। জাতীয় দলের হয়ে সর্বোচ্চ গোল করার তালিকায় ৩৪ বছর বয়সি পর্তুগিজ ফরোয়ার্ডের সামনে কেবল রয়েছেন ইরানের আলি দাই৷ যাঁর দখলে রয়েছেন রেকর্ড সংখ্যক ১০৯টি গোল।

চার গোলের পর অবশ্য রোনাল্ডোকে তুলে গেদেসকে নামান কোচ ফের্নান্দো সান্তোস। দ্বিতীয়ার্ধের অতিরিক্ত সময়ে কারভালহোর শট পোস্টে লেগে লিথুয়ানিয়ার জালে জড়ালে বড় ব্যবধানে জিতে মাঠ ছাড়ে পর্তুগাল। চার ম্যাচে দু’টি ড্রয়ের পর টানা দুই ম্যাচ জিতে ৮ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে গতবারের চ্যাম্পিয়নরা। তবে পাঁচ ম্যাচে ১৩ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে রয়েছে ইউক্রেন।