লন্ডন: ফুটবলপ্রেমীদের জন্য সুখবর। বুন্দেসলিগা, লা-লিগার পর ইংলিশ প্রিমিয়র লিগ শুরুর ব্যাপারে এবার সবুজ সংকেত প্রদান করল সেদেশের সরকার। আগামী ১জুন থেকে পুনরায় চালু হতে পারে স্থগিত হয়ে যাওয়া প্রিমিয়র লিগ। সম্ভাবনা তেমনই।

করোনার জেরে ৩০ হাজারেরও বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন যুক্তরাজ্যে। এমন সময় নেদারল্যান্ড, ফ্রান্সের মতো দেশগুলো দেশের প্রিমিয়র ডিভিশন ফুটবল লিগ মাঝপথে বাতিল করে দেওয়ায় ইপিএল পুনরায় চালু হওয়া নিয়েও দানা বেঁধেছিল সন্দেহ। তবে ক্লোজ-ডোর অনুষ্ঠিত হওয়ার বিষয়টিও উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছিল না। অবশেষে আগামী মাসের শুরু থেকে সরকারি যাবতীয় প্রোটোকল মেনে ক্লোজ-ডোর শুরু হচ্ছে প্রিমিয়র লিগ।

সোমবার দুপুরে লকডাউন পরবর্তী সময় দেশে বিভিন্ন বিভিন্ন সেক্টর ওপেন করার বিষয়ে ৫০ পাতার একটি প্রোটোকল সংবাদমাধ্যমের কাছে পেশ করেন ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। যার মধ্যে আগামী মাসের শুরুতে প্রিমিয়র চালু করার বিষয়টিও রয়েছে। তবে এক্ষেত্রে ক্লাব অনুরাগীদের বাড়ি থেকেই ম্যাচের মজা উপভোগ করতে হবে। সরকারের প্রোটোকল অনুযায়ী চলতি মরশুম তো বটেই এমনকি আগামী মরশুমেও দর্শকরা স্টেডিয়ামে গিয়ে খেলা উপভোগ করতে পারবেন কীনা, সেটা করোনা সংক্রমণের হার পরবর্তীতে পর্যালোচনা করে তবেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

লিগ শুরু হওয়ার ঘোষণা হলেও এখনও যুক্তরাজ্যে করোনা সংক্রমণের হার যথেষ্টই। এমন সময় লিগ চালু হলে তা নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন ম্যান সিটির তারকা স্ট্রাইকার সার্জিও আগুয়েরো কিংবা চেলসির অ্যান্তোনিও রুডিগার। এরইমধ্যে ব্রিটনের তিন ফুটবলার করোনা সংক্রমণ নিয়ে গত তিন সপ্তাহ ধরে রয়েছেন আইসোলেশনে। এখন দেখার সরকারের সবুজ সংকেতের পর প্রিমিয়র লিগ কর্তৃপক্ষ লিগ শুরুর ব্যাপারে কতোটা অগ্রসর হয়।

অন্যদিকে আগামী ১২ জুন থেকে লিগ চালু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে লা-লিগা কর্তৃপক্ষ। ইতিমধ্যেই প্রাথমিক স্বাস্থ্যপরীক্ষার পর জোয়ান গাম্পার অনুশীলন কেন্দ্রে বিগত কয়েকদিন ধরে গাইডলাইন মেনেই অনুশীলন করছেন মেসিরা। সোমবার থেকে শুরু হল রিয়াল মাদ্রিদের অনুশীলনও। ১২ জুন থেকে শুরু হচ্ছে তুরস্কের প্রিমিয়র ডিভিশন লিগও। তবে লিগ চালুর বিষয়ে সবচেয়ে অগ্রণী বুন্দেসলিগা। ৭ হাজারেরও বেশি মানুষের মৃত্যুর পর ১৬মে থেকে শুরু হচ্ছে জার্মানির ফুটবল লিগ।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।