নয়াদিল্লি: সুখবর এমপ্লয়িজ প্রভিডেন্ট ফান্ড অর্গানাইজেশন (ইপিএফও)-এর গ্রাহকদের জন্য ৷ কারণ গত অর্থবর্ষে (২০১৮-’১৯) পিএফও-র আওতায় থাকা এই সব কর্মচারীরা  প্রভিডেন্ট ফান্ডে (পিএফ) যে পরিমাণ টাকা জমা করেছে তার উপর ৮.৬৫ শতাংশ হারে সুদ পাবে এবং কয়েক দিনের মধ্যে তা তাদের অ্যাকাউন্টে জমা হবে। ছয় কোটি কর্মচারীরা এই সুবিধা পাবে বলে মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় শ্রমমন্ত্রী সন্তোষ গাঙ্গোয়ার জানিয়েছেন।

দিল্লিতে এ দিন একটি অনুষ্ঠানের ফাঁকে কেন্দ্রীয় শ্রমমন্ত্রী সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, উৎসবের মরসুম শুরুর আগে,একটা সুখবর দিই। ইপিএফও-র আওতায় থাকা ৬ কোটিরও বেশি কর্মচারী প্রভিডেন্ট ফান্ডে তাঁদের মোট জমার উপর গত অর্থবর্ষে ৮.৬৫ শতাংশ হারে সুদ পাবেন।

আগেই এই বছরে শ্রমমন্ত্রীর নেতৃত্বাধীন ইপিএফও অছি পরিষদে সিদ্ধান্ত নিয়েছিল ২০১৮-১৯ সালের জন্য ৮.৬৫ শতাংশ হারে সুদ দেওয়ার , যা গত তিন বছরে প্রথমে সুদ বৃদ্ধি৷ এরপরে গত মাসে ফিকির এক অনুষ্ঠানে শ্রমমন্ত্রী গাঙ্গোয়ার জানিয়েছিলেন, অর্থমন্ত্রক ২০১৮-১৯ অর্থবর্ষের জন্য ইপিএফের সুদ ৮.৬৫ শতাংশ বিরোধিতা করছে না ৷ জরুরি প্রয়োজনে পিএফ-এর টাকা তোলার সময় সুদ দেওয়া হত ৮.৫৫ শতাংশ হারে। যা ২০১৭-১৮ সালে ইপিএফে সুদের এই হার নির্ধারিত হয়েছিল৷

অর্থমন্ত্রক সহমত হওয়ায় শ্রমমন্ত্রক সুদের হারে বিষয়ে বিজ্ঞপ্তি দিতে পারে ৷ তারপরে ইপিএফও তার ১৩৬টি ফিল্ড অফিসারকে নির্দেশ দেবে গ্রাহকদের অ্যাকাউন্টে সুদ জমা করার৷ ২০১৮-১৯সালে ইপিএফও সুদের হার বাড়িয়ে ৮.৬৫ শতাংশ করা হয় যা ২০১৭-১৮ সালে ছিল ৮.৫৫ শতাংশ৷ ২০১৫-১৬ সালে ৮.৮শতাংশ থেকে ২০১৬-১৭ সালে সুদের হার কমিয়ে ৮.৬৫ শতাংশ করা হয়েছিল৷ ইপিএফও হিসেব অনুসারে ২০১৮-১৯ সালে ৮.৬৫ শতাংশ হারে সুদ দেওয়ার পর ১৫১.৬৭ কোটি টাকা উদ্বৃত্ত থাকবে৷ তবে যদি ৮.৭ শতাংশ হারে সুদ দিতে হত তাহলে ১৫৮ কোটি টাকা ঘাটতি থাকত৷ তাই ৮.৬৫ শতাংশ হার ঠিক হয়েছে৷