নয়াদিল্লি: ইন্ডিয়ান কোস্ট গার্ড কর্মী নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। আগ্রহী প্রার্থীদের দ্রুত আবেদনের জন্য জানানো হয়েছে। enrolled follower( sweeper/ safaiwala) পদে কর্মী নিয়োগের জন্য এই বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে। আগ্রহী প্রার্থীদের দ্রুত আবেদনের জন্য জানানো হয়েছে। প্রার্থীদের ৮.১২.২০২০ এই তারিখের মধ্যে আবেদন করতে হবে।

এই পদের জন্য মোট শূন্য পদ রয়েছে ১ টি। প্রার্থীদের এই পদে আবেদনের জন্য ১০ বা আই টি আই পাস করতে হবে। প্রার্থীদের বয়স ১৮ থেকে ২৫ বছরের মধ্যে হতে হবে। প্রাথীদের বেতন হবে ২১৭০০-৬৯১০০ এর মধ্যে। প্রার্থীদের দ্রুত আবেদন করতে জনান হয়েছে। এছাড়া জানানো হয়েছে নিয়ম মাফিক তফসিলি জাতি এবং উপজাতি প্রার্থীদের বয়সের ক্ষেত্রে ৫ বছর এবং অন্যান্য অনগ্রসর শ্রেনীর ক্ষেত্রে ৩ বছরের বয়সের ছাড় দেওয়া হবে।

জানানো হয়েছে এই পদের ক্ষেত্রে কেবলমাত্র পশ্চিমবঙ্গের পুরুষ প্রার্থীরাই আবেদন করতে পারবেন। প্রার্থীদের প্রাথমিক ভাবে ২ বছরের জন্য প্রার্থীদের প্রবেশন পিরিয়ডে রাখা হবে। পরবর্তীকালে ১ বছরের জন্য মেয়াদ বাড়ানো হতে পারে। এই পদে আবেদনের জন্য প্রার্থীদের উচ্চতা ১৫৭ সি এম বুক উচ্চতা অনুযায়ী হতে হবে।

এছাড়া কমপক্ষে ৫ সি এম ফোলাতে হবে। সঠিক ওজন থাকতে হবে। প্রার্থীদের লিখিত পরীক্ষা, শারীরিক পরীক্ষা দেখে বাছাই করা হবে। বিস্তারিত জানার জন্য প্রার্থীদের www.indiancooastguard.gov.in এই ওয়েবসাইটে চোখ রাখতে হবে। আবেদন পত্র the recruitment officer indian coast guard district headquarter mo 8 dist- purba medinipur anchorage camp township haldia- 721607 এই ঠিকানাতে পাঠাতে হবে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।