আমদাবাদ: মাইলস্টোন ম্যাচে বিরাট কোহলি৷ ব্যক্তিগত মাইলস্টোনের পাশাপাশি ভারতকে প্রথম আইসিসি ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের লক্ষ্যে মাঠে নামল কোহলি অ্যান্ড কোং৷ মোতেরায় ভারতের বিরুদ্ধে সিরিজের শেষ টেস্টে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত ইংলান্ডের৷

সিরিজের শেষ টেস্ট দুই দলের ক্যাপ্টেনের কাছে মাইলস্টোন ম্যাচ৷ ভারত অধিনায়ক হিসেবে সর্বাধিক টেস্টে দেশকে নেতৃত্বে দেওয়ার ধোনির রেকর্ড স্পর্শ করলেন ক্যাপ্টেন কোহলি৷ এই টেস্টের আগে পর্যন্ত ভারতকে সর্বাধিক ৬০টি টেস্টে নেতৃত্ব দেওয়ার রেকর্ড ছিল ধোনির দখলে৷ সাত বছরের ক্যাপ্টেন্সি কেরিয়ারে এই রেকর্ড গড়েছিলেন ধোনি৷ বৃহস্পতিবার সেই রেকর্ডে ভাগ বসালেন কোহলি৷

ইংল্যান্ড ক্যাপ্টেন জো রুটের সামনেও এটি মাইলস্টোন টেস্ট৷ দেশকে ৫০তম টেস্টে নেতৃত্ব দিচ্ছেন রুট৷ মাইলস্টোন টেস্ট জিতে প্রথমে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নিলেন ইংল্যান্ড অধিনায়ক৷ টস জিতে রুট বলেন, ‘আমরা প্রথম ইনিংসের সুবিধা তুলতে চাই৷ একটা সময় পর পিচে স্পিন হবে৷ সিরিজে আমাদের পারফরম্যান্সে আপ-ডাউন্স রয়েছে৷ আশা করি এখানে আমরা সেরাটা দিতেে পারব৷ সিরিজের শেষ টেস্টের দলে দু’টি পরিবর্তন করেছে ইংল্যান্ড৷ জোফরা আর্চার ও স্টুয়ার্ট ব্রডের পরিবর্তে দলে নিয়েছেন ড্যান লরেন্স ও ডম বেসকে৷

ভারত অধিনায়ক কোহলি টস হেরে বলেন, ‘আমরাও টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং নিতাম৷ প্রথমে ব্যাটিং করার জন্য দারুণ পিচ৷ তবে আমরা সেরাটা দিকে ইংল্যান্ডকে চাপে রাখার চেষ্টা করব৷’ ভারত এই টেস্টে একটি পরিবর্ত করেছে৷ বিয়ের জন্য এই টেস্টে খেলছেন না জসপ্রীত বুমরাহ৷ তাঁর পরিবর্তে দলে এসেছেন মহম্মদ সিরাজ৷

সিরিজের প্রথম টেস্টে ইংল্যান্ডের কাছে ২২৭ রানে হেরেছিল ভারত৷ কিন্তু দ্বিতীয় টেস্ট জিতে সিরিজে সমতা ফেরায় কোহলি অ্যান্ড কোং৷ ৩১৭ রানে দ্বিতীয় টেস্ট জেতে ভারত৷ তারপর তৃতীয় টেস্টে ১০ উইকেটে জিতে চার টেস্টের সিরিজে ২-১ এগিয়ে থেকে সিরিজের শেষ টেস্টে নামল টিম ইন্ডিয়া৷ এই টেস্ট জিতলে সিরিজ জয়ের পাশাপাশি ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে পৌঁছে যাবে কোহলি অ্যান্ড কোং৷

একনজরে ভারতীয় দল: রোহিত শর্মা, শুভমান গিল, চেতেশ্বর পূজারা, বিরাট কোহলি (অধিনায়ক), আজিঙ্কা রাহানে, ঋষভ পন্ত (উইকেটরক্ষক), ওয়াশিংটন সুন্দর, রবিচন্দ্রন অশ্বিন, অক্ষর প্যাটেল, মহম্মদ সিরাজ, ইশান্ত শর্মা।

একনজরে ইংল্যান্ড একাদশ: ডম সিবলে, জনি বেয়ারস্টো, জ্যাক ক্রলি, জো রুট (অধিনায়ক), বেন স্টোকস, ওলি পোপ, বেন ফোকস (উইকেটরক্ষক), ড্যান লরেন্স, জ্যাক লিচ, জেমস অ্যান্ডারসন, ডম বেস।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।