ব্রিস্টল: বিশ্বকাপের আগে নির্বাসিত ইংল্যান্ড অধিনায়ক ইয়ন মর্গ্যান৷ যদিও তাতে ব্রিটিশ সমর্থকদের আতঙ্কিত হওয়ার মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়নি৷ কেননা, ঘরের মাঠে আইসিসি’র ফ্ল্যাগশিপ ইভেন্ট শুরু হওয়ার আগেই শাস্তির খাড়া উঠে যাবে মর্গ্যানের ঘাড় থেকে৷

পাকিস্তানের বিরুদ্ধে চলতি সিরিজের তৃতীয় ওয়ান ডে ম্যাচে স্লো ওভার রেটের জন্য মর্গ্যানসহ গোটা ইংল্যান্ড দলেরই শাস্তি হয়েছে৷ ব্রিস্টলে নির্ধারিত সময়ে কোটার ৫০ ওভার পূর্ণ করতে পারেননি৷ সব দিক বিবেচনার পর শিথিলযোগ্য সময় বাদ দিয়েও ২ ওভার পিছিয়ে থাকে ইংল্যান্ড৷ আইসিসি’র কোড অফ কন্ডাক্ট অনুযায়ী এটাকে মাইনর ওভার রেটের অপরাধ হিসাবে বিবেচনা করা হয়৷

আরও পড়ুন: বিশ্বকাপে অন্যতম ফেভারিট পাকিস্তান: সৌরভ

আচরণবিধির ২.২২.১ ধারা অনুযায়ী মাইনর ওভার রেটের জন্য বাকি থাকা প্রতিটি ওভারের জন্য দলের প্রত্যের সদস্যের ম্যাচ ফি’র ১০ শতাংশ জরিমানা হয়৷ অধিনায়কের জরিমানা হয় এর দ্বিগুন৷ অর্থাৎ ২ ওভারের জন্য ইংল্যান্ড ক্রিকেটারদের প্রত্যেকের ম্যাচ ফি’র ২০ শতাংশ জরিমান হয়৷ ক্যাপ্টেন মর্গ্যানের ক্ষেত্রে জরিমানার অর্থ দাঁড়ায় ম্যাচ ফি’র ৪০ শতাংশ৷

গত ১২ মাসের মধ্যে মর্গ্যানের নেতৃত্বে এর আগেও একবার স্লো ওভার রেটে দোষী সাব্যস্ত হয় ইংল্যান্ড৷ ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে বার্বেডোজে স্লো ওভার রেটের জন্য জরিমানা হয়েছিল মর্গ্যানসহ ইংল্যান্ড দলের৷ ফলে ১২ মাসের মধ্যে দু’বার স্লো ওভার রেটের আওতায় পড়ায় মর্গ্যানকে এক ম্যাচের জন্য নির্বাসিত করে আইসিসি৷ যার অর্থ, পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সিরিজের চতুর্থ ওয়ান ডে ম্যাচে মাঠে নামতে পারবেন না তিনি৷

আরও পড়ুন: কপিলের ৩৬ বছরের রেকর্ড ভাঙলেন পাক ব্যাটসম্যান

মর্গ্যানকে নির্বাসিত করা ছাড়াও ইংল্যান্ড উইকেটকিপার জনি বেয়ারস্টোকে লেভেল-১ অপরাধের জন্য সতর্কিত করেন ম্যাচ রেফারি৷ সঙ্গে তাঁর ডিসিপ্লিনারি রেকর্ডে একটি নেগেটিভ পয়েন্ট জমা হয়৷