ম্যাঞ্চেস্টার: তৃতীয়দিন ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে বৃষ্টির কারণে গড়ায়নি একটি বলও। যা দ্বিতীয় টেস্টে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ভাগ্যকে সঙ্গ দেবে বলে প্রাথমিকভাবে মনে করছিলেন বিশেষজ্ঞরা। কিন্তু ব্যাট হাতে রানের বোঝা চাপিয়ে দেওয়ার পর চতুর্থদিন নতুন বলে ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দেন স্টুয়ার্ট ব্রড, ক্রিস ওকসরা। অল্পের জন্য ওয়েস্ট ইন্ডিজ ফলো-অন বাঁচাতে সক্ষম হলেও প্রথম ইনিংসে অনেকটা এগিয়ে ছিল ইংরেজরা। ১৮২ রানে এগিয়ে থেকে চতুর্থদিন দ্বিতীয় ইনিংসে ২ উইকেট হারিয়ে ৩৭ রানে শেষ করেছিল ইংল্যান্ড। হাতে মাত্র একটাদিন থাকায় কাজটা কঠিন থাকলেও অসম্ভব ছিল না।

আর পঞ্চমদিন সেই সম্ভাবনাকেই বাস্তব রূপ দিল ইংল্যান্ড। দ্বিতীয় টেস্টে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ১১৩ রানে হারিয়ে সিরিজে দুরন্ত প্রত্যাঘাত ছুঁড়ে দিল ব্রিটিশবাহিনী। পিছিয়ে পড়েও সিরিজে সমতা ফেরাল ইংল্যান্ড। অন্তিমদিন রুটদের স্ট্র্যাটেজির উপর অনেকটাই নির্ভর করছিল ম্যাচের ভাগ্য। তবে চতুর্থদিন দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট হাতে স্টোকসকে ওপেনে নামতে দেখে এটুকু পরিষ্কার হয়ে গিয়েছিল যে জয়ের জন্য পুরোপুরি ঝাঁপাবে তাঁরা। পঞ্চমদিন মর্নিং সেশনের শুরুতে টি২০-র গতিতে রান তুলতে শুরু করেন বেন স্টোকস। মাত্র ৩৬ বলে এদিন টেস্ট ক্রিকেটে ইংল্যান্ডের হয়ে দ্রুততম অর্ধশতরান করেন ইংরেজ সহ-অধিনায়ক।

লিড ৩০০’র গন্ডি পেরিয়ে যাওয়ার পর খুব বেশি সময় অপেক্ষা করেননি রুট। সাজঘরে ডেকে নেন তাঁর দুই অপরাজিত ব্যাটসমানকে। সবমিলিয়ে ৩ উইকেটে ১২৯ রান তুলে ইনিংস ডিক্লেয়ার করে ইংল্যান্ড। ৫৭ বলে মারকাটারি ৭৮ রান করে অপরাজিত থাকেন প্রথম ইনিংসের শতরানকারী। ওলি পোপ অপরাজিত থাকেন ১২ রানে। ২২ রানে প্যাভিলিয়নে ফেরেন রুট। ম্যাচ জয়ের জন্য ৮৫ ওভারে ওয়েস্ট ইন্ডিজের লক্ষ্যমাত্রা দাঁড়ায় ৩১২ রান। পক্ষান্তরে ইংল্যান্ডের প্রয়োজন ছিল ১০ উইকেট।

উইন্ডিজ ব্যাটসম্যানরা ম্যাচ বাঁচানোর লক্ষ্যে থাকলেও ইংরেজ বোলাররা ছিলেন লক্ষ্যে স্থির। প্রথম ওভারেই ব্রডের ইনসুইং ক্যাম্পবেলের ব্যাটের কানা ছুঁয়ে বাটলারের দস্তানায় জমা পড়ে। এরপর নিয়মিত ব্যবধানে সাজঘরে ফেরেন ব্রাথওয়েট, হোপ, চেজ। ৩৭ রানের মধ্যে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৪ উইকেট খোয়ানোর পরেই ম্যাচ ইংল্যান্ডের দিকে ঢলে পড়ে। তবু পঞ্চম উইকেটে ব্রুকস-ব্ল্যাকউডের ১০০ রানের পার্টনারশিপে কিছুটা আশা দেখেছিল ক্যারিবিয়ানরা। কিন্তু ৫৫ রানে ব্ল্যাকউড ফেরার পর আর লম্বা কোনও পার্টনারশিপ তৈরি হয়নি উইন্ডিজের। এরপর শূন্য রানে ফেরেন ডাউরিচ। ব্যক্তগত ৬২ রানে ফেরেন ব্রুকস।

৩৫ রান করে কিছুটা পতন রোধের চেষ্টা করেছিলেন হোল্ডার। তবে বাকি টেল-এন্ডারদের ব্যর্থতায় ম্যাচ বাঁচানো সম্ভব হয়নি ক্যারিবিয়ানদের। ব্রড, ওকস, স্টোকসদের সম্মিলিত প্রয়াসে দ্বিতীয় ইনিংসে মাত্র ১৯৮ রানেই গুটিয়ে যায় তাঁরা। ৩টি উইকেট নেন ব্রড। ২টি করে উইকেট পেয়েছেন ওকস, বেস এবং স্টোকস। একটি উইকেট পেয়েছেন স্যাম কারেন। ম্যাচের সেরা বেন স্টোকস।

স্বামীর সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে বস্ত্র ব্যবসাকে অন্যমাত্রা দিয়েছেন।'প্রশ্ন অনেকে'-এ মুখোমুখি দশভূজা স্বর্ণালী কাঞ্জিলাল I