চেন্নাই: ডিগ্রি আছে, কিন্তু যোগ্য চাকরি নেই৷ আরও একবার সত্যি প্রমাণিত হল কথাটি৷ নইলে তামিলনাড়ু বিধানসভার ঝাড়ুদারের শূন্যপদে ইঞ্জিনিয়ার, এমবিএ, বি টেক ও এম টেক ডিগ্রিধারীদের আবেদন করতে হত না৷

এমন খবর শুনে মানুষ আর অবাক হন না৷ এর আগেও বহুবার সরকারি গ্রুপ ডি কর্মী, পিওনের মতো ছোট পদের চাকরিতে ডিগ্রিধারীদের আবেদনের নজির আছে৷ ঠিক একই ঘটনা ঘটল তামিলনাড়ুতে৷ রাজ্য বিধানসভায় ঝাড়ুদারের ১০টি শূন্যপদের বিজ্ঞপ্তি বের হয় গত বছর সেপ্টেম্বর মাসে৷ আবেদনকারীর সংখ্যা ৪ হাজার ৬০৭ জন৷ অধিকাংশ আবেদনকারীই উচ্চশিক্ষিত৷ তাদের মধ্যে রয়েছে ইঞ্জিনিয়ার, বি টেক, এম টেক ডিগ্রিধারীরা৷

কিছুদিন আগে মহারাষ্ট্র সরকার ১৩টি ওয়েটার পদে ১২ জন স্নাতককে নিয়োগ করেছে৷ একজন শুধুমাত্র উচ্চমাধ্যমিক পাশ৷ সরকারের এই নিয়োগকে কেন্দ্র করে সমালোচনায় মুখর হয় বিরোধীরা৷ তোপ দেগে জানিয়েছে, এই হল বিজেপি সরকারের আচ্ছে দিনের নমুনা৷ এখন চতুর্থ পাশের জায়গায় ক্যান্টিনের টেবিল পরিস্কার করবেন স্নাতকরা৷

বিধান পরিষদের বিরোধী নেতা ধনঞ্জয় মান্ডে কটাক্ষের সুরে জানান,মন্ত্রী ও আমলাদের লজ্জা হওয়া উচিত৷ মন্ত্রীদের অনেকের থেকে বেশি শিক্ষিত এই ১৩ জন৷ তাদের কাছ থেকে পরিষেবা নিতেও তো লজ্জা হওয়া উচিত মন্ত্রী ও আমলাদের৷ আর ১৩টি পদের জন্য সাত হাজার আবেদন পত্র জমা পড়েছে৷ এতেই পরিস্কার রাজ্যে চাকরির কী অবস্থা৷ রেলের ৮৫২টি খালি পদের জন্য ১০ লক্ষ আবেদন জমা পড়া সবই আচ্ছে দিনের সুফল৷ তবে চতুর্থ পাশের বদলে স্নাতকদের ক্যান্টিনে ওয়েটার পদে নিয়োগের ঘটনা খুবই দুর্ভাগ্যের৷

প্রশ্ন অনেক: দ্বিতীয় পর্ব