ইন্টারনেট থেকে প্রাপ্ত ছবি৷

শ্রীনগর: আরও একটা দিন গুলির শব্দে ঘুম ভাঙল উপত্যকাবাসীর৷ রবিবার সাতসকালে দক্ষিণ কাশ্মীরের ত্রালে জঙ্গি ও নিরাপত্তা বাহিনীর মধ্যে গুলির লড়াই বাঁধে৷ সূত্রের খবর, দুই থেকে তিন জঙ্গি এখানে লুকিয়ে আছে৷ তাদের খতম করতেই সেখানে হানা দেয় সেনাবাহিনী৷

সূত্র মারফত জঙ্গিদের লুকিয়ে থাকার খবর পেয়ে রবিবার ভোররাতে ত্রালে অপারেশন শুরু করে নিরাপত্তা বাহিনী৷ তাদের দেখে প্রথমে হামলা করে জঙ্গিরা৷ পাল্টা জবাব দেয় ভারতীয় সেনা৷ এখন গুলির লড়াই চলছে৷ জঙ্গিরা যাতে পালাতে না পারে তার জন্য তাদের একটা জায়গায় আটকে রেখে ঘিরে ফেলা হয়েছে৷

এদিকে গতকাল একটি এনকাউন্টারে খতম করা হয় জঙ্গিদের৷ শনিবার সোপিয়ানের ঘটনা৷ টহলরত জওয়ানদের উপর হঠাৎ হামলা করে সন্ত্রাসবাদীরা৷ পাল্টা জবাব দেয় সেনা৷ দুই পক্ষের তীব্র গুলির লড়াইয়ে নিকেশ হয় দুই সন্ত্রাসবাদী৷ মৃতদের একজন এম টেক করা জঙ্গি বলে জানা গিয়েছে৷

ওই একই দিনে বারামুল্লা জেলায় এক জওয়ান নিহত হয়েছেন বলে খবর৷ জানা গিয়েছে, সোপোরোর ওয়ারপোরা এলাকায় মহম্মদ রাফিক ইয়াতু নামে জওয়ানকে গুলি করে জঙ্গিরা৷ গুরুতর আহত অবস্থায় তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানেই মৃত্যু হয় তাঁর৷

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, ওই আর্মি জওয়ান ছুটিতে বাড়ি এসেছিলেন৷ ঘটনার সময় বাড়িতে একা ছিলেন৷ তখন জঙ্গিরা ঘরে ঢুকে তাঁকে গুলি করে মারে৷ ওই জওয়ান ৫২ রাষ্ট্রীয় রাইফেলসের পদাতিক বাহিনীতে কর্মরত ছিলেন৷ বারামুল্লাতে তাঁর পোস্টিং ছিল৷ পুলিশ জানিয়েছে, এদিন বিকাল সাড়ে পাঁচটা নাগাদ জঙ্গিরা তাঁর ঘরে ঢুকে পড়ে৷ পয়েন্ট ব্ল্যাঙ্ক রেঞ্জ থেকে গুলি করে তাঁকে খুন করা হয়৷ ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে৷ জঙ্গিদের খোঁজ চলছে৷