স্টাফ রিপোর্টার, রাঙ্গালিবাজনা: সারা রাজ্যে হাতির হানায় মানুষের মৃত্যুর সংখ্যা বারছে। গত দশ মাসে আলিপুরদুয়ার জেলসায় হাতির আক্রমণে ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়াও হাতির তাণ্ডবে বহু এলাকায় চাষবাসের ক্ষতি হয়েছে। এবার খুনি হাতিদের জন্য তৈরি হচ্ছে জেলখানা।

বহুদিন থেকেই হাতির তাণ্ডব থামানোর জন্য ডুয়ার্সের বিভিন্ন এলাকার মানুষ অভিযোগ তুলেছিল। অবশেষে নড়েচড়ে বসল বনদফতর। হাতির জন্য জেলখানা হতে পারে বছর দুয়েক আগেই এমন ইঙ্গিত দিয়েছিলেন তৎকালীন বনমন্ত্রী বিনয়কৃষ্ণ বর্মন। কিন্তু সেবার কাজ এগোয়নি! অন্যদিকে প্রায় প্রতিদিনই খবরের শিরোনামে উঠে এসেছে হাতির আক্রমণে মানুষের মৃত্যু। এবার থেকে খুনি হাতিদের আটকে রাখার ব্যবস্থা করবে বনদফতর। উত্তরবঙ্গ ও দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন জঙ্গলে ধরনের জেলখানা তৈরি হচ্ছে।

বনদফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, বহু মানুষের মৃত্যু হয়েছে। হাতির হাত থেকে মানুষকে বাঁচাতে এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বর্তমান বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, ইতিমধ্যেই উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জায়গায় এ ধরনের হাতিদের আটকে রাখার জন্য এনক্লোজার তৈরির কাজ শুরু হয়েছে। রাজাভাতখাওয়ার চেকো এলাকায় এ ধরনের একটি জেলখানা তৈরি হয়েছে।

বনদফতরের উদ্যোগে আগামী দিনে হাতির আক্রমণে মানুষের মৃত্যুর সংখ্যা নিয়ন্ত্রণে আসবে বলেই মনে করছে নানা মহল। যদিও বনদফতরের কাজ কতটা দ্রুত গতিতে এগোবে এই নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন কেউ কেউ। বনদফতরের পক্ষ থেকে এক সমীক্ষা চালিয়ে ২০১৭-২০১৮ সালে প্রায় ৭৮টি হাতিকে খুনি হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এর মধ্যে ৪০টি হাতি উত্তরবঙ্গের। অধিকাংশই দাঁতাল। এরা প্রায়ই বিভিন্ন এলাকায় ত্রাসের সৃষ্টি করে। মানুষের বাড়ি ঘর ভেঙে দেয়। এবার থেকে এমন হাতিদের ‘দুষ্টু’ আটকে রাখা হবে জেলে।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV