নয়াদিল্লি: মাসের শেষে বিদ্যুতের বিল দেখে আর মাথায় হাত দিতে হয়! এই দূরাবস্থা দূর করে সুদিন আনতে চলেছে মোদী সরকার।

মোবাইলের মতোই বিদ্যুতের বিল হয়ে যাবে প্রিপেইড। আগাম দিতে হবে টাকা। তবে তা কখনই প্রয়োজনের বেশি নয়। ঠিক যতটা দরকার ততটাই দিতে হবে, মানে রিচার্জ করতে হবে।

ফাইল ছবি৷

সোমবার কেন্দ্রীয় বিদ্যুৎ মন্ত্রকের পক্ষ থেকে নির্দেশিকা জারি করে এই খবর জানানণ হয়েছে। সেই নির্দেশিকা অনুসারে আগামী বছরের এপ্রিল মাসের প্রথম দিন থেকে দেশে প্রিপেড মিটার চালু হয়ে যাবে। সম্ভব হলে এপ্রিল মাসের আগেও এই ব্যবস্থা চালু হয়ে যেতে পারে বলে জানানো হয়েছে কেন্দ্রীয় বিদ্যুৎ মন্ত্রকের পক্ষ থেকে।

এই ব্যবস্থা চালু করার জন্য প্রতিটি গ্রাহককে পৃথক যন্ত্র বসাতে হবে। সেই মিটারের সাহায্যের বিদ্যুতের ব্যবহার সম্পর্কে জানতে পারবে গ্রাহক। নিজেদের বিদ্যুতের খরচ এবং ব্যবহার সম্পর্কেও অবগত থাকতে পারবে সকলে। একই সঙ্গে বিদ্যুৎ পরিষেবা প্রদানকারী সংস্থাও বিদ্যুতের ব্যবহার সম্পর্কে সচেতন হতে পারবে।

পরিষেবা প্রদানকারী সংস্থার থেকে গ্রাহক পরিষেবাকেই অধিক গুরুত্ব দিচ্ছেন কেন্দ্রীয় বিদ্যুৎ মন্ত্রী আরকে সিং। তাঁর মতে, “অনেক জায়গা থেকেই বিদ্যুতের অতিরিক্ত বিল আসার অভিযোগ আসে। সেই সমস্যা সমাধানের জন্য প্রিপেইড মিটারের সিদ্ধান্তে নেওয়া হয়েছে।” যদিও বিষয়টি এখনও পরীক্ষামূলক পর্যায়ে রয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।