প্রতীকি ছবি

ভোপাল: আগামী বছর রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচন৷ তার আগে থেকেই ভোটারদের মন জয় করতে ময়দানে নেমে পড়েছেন মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান৷ বৃহস্পতিবার এক অনুষ্ঠানে এসে রাজ্যবাসীকে সস্তায় বিদ্যুত দেওয়ার কথা ঘোষণা করেন৷ বলেন, বিদ্যুত বিলের জন্য মাত্র ২০০ টাকা দিলেই হবে৷ সেই সঙ্গে গরীবদের জন্য বিনা পয়সায় বিদ্যুত সংযোগের ব্যবস্থা করবেন বলে প্রতিশ্রুতি দেন তিনি৷

স্বাভাবিকভাবে মুখ্যমন্ত্রীর এই ঘোষণা খুশি করবে রাজ্যবাসীকে৷ কেননা বিদ্যুতের জন্য আর মোটা অঙ্কের বিল মেটাতে হবে না তাদের৷ কেননা মাসিক ২০০ টাকা দিলেই বিদ্যুত পাবেন তারা৷ এদিন মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান বলেন, রাজ্যের কোন বাড়ি বিদ্যুতহীন থাকবে না৷ আমরা নতুন আইন আনতে চলেছি৷ প্রত্যেক বাড়িতে বিদ্যুত পৌঁছে দেব আমরা৷ রাজ্যের সব গরীব মানুষকে বিনামূল্যে বিদ্যুত সংযোগের ব্যবস্থা করে দেব৷ শুধু ২০০ টাকা দিলেই হবে৷

এদিকে এদিনই কেন্দ্রীয় বিদ্যুত ও শক্তি মন্ত্রী আর কে সিং সবার ঘরে ২৪ ঘন্টা বিদ্যুৎ পরিষেবা দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন৷ ২০১৯ সালের মার্চ মাসের মধ্যে সেই বিদ্যুৎ পৌঁছে দেওয়া হবে ঘরে ঘরে, দেশের প্রতিটি কোণায়৷ বৃহস্পতিবার লোকসভায় জিরো আওয়ারে প্রশ্নোত্তর পর্ব চলাকালীন এই আশ্বাস দেন মন্ত্রী৷

চলতি মাসেই মন্ত্রী জানিয়েছিলেন ২০১৮ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে দেশের মোট ১৬৯৪ টি গ্রামে বিদ্যুতায়ন করবে কেন্দ্র৷ সেই কাজ অতি দ্রুততার সাথে চলছে৷ আশা করা যায় সেই কাজ সময়ের মধ্যেই শেষ হবে৷ মন্ত্রী আরও বলেন, মার্চ ২০১৯ সালের মধ্যে যদি প্রস্তাবিত কাজ না শেষ হয়, তবে কড়া পদক্ষেপ করবে সরকার৷ তবে যান্ত্রিক ত্রুটি থাকলে কাজ পিছোতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন তিনি৷

বিদ্যুতমন্ত্রী এও জানিয়েছেন যে ২০১৯ সালে জানুয়ারি মাসের মধ্যে বিদ্যুৎ ও শক্তিক্ষেত্রে ঘাটতি কমিয়ে আনতে চেষ্টা চালাচ্ছে সরকার৷ এই ঘাটতি ২১ শতাংশের জায়গায় ১৫ শতাংশে কমিয়ে আনার লক্ষ্যমাত্রা রাখা হয়েছে৷ শক্তিক্ষেত্রের পরিকাঠামো উন্নয়নে ১,৭৫০০০ কোটি টাকার বরাদ্দ ধার্য করা হয়েছে বলে এদিন তথ্য তুলে ধরেন মন্ত্রী৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।