কলকাতাঃ  আর মাত্র কিছুক্ষণের অপেক্ষা। কিছুক্ষণের মধ্যেই শুরু হবে সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনের ভোটগণনা। বাংলার ৪২টি লোকসভা কেন্দ্রের জন্য ৫৮টি গণনাকেন্দ্রে ৩৭৯টি হলে ৪৬৬৮টি টেবিলে গণনা হবে। আর এই ভোট গণনার জন্যে প্রত্যেকটি বুথেই ত্রিস্তরীয় নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েছে নির্বাচন কমিশন। ভোট গণনা যাতে নির্বিঘ্নে হয়, তার জন্য ১৫৫ জন পর্যবেক্ষক রাজ্যে হাজির থাকবেন। স্ট্রং রুম সহ গণনাকেন্দ্রের নিরাপত্তার জন্য ৮২ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন থাকছে বলে জানা গিয়েছে।

শুধু তাই নয়, রিটার্নিং অফিসার, অ্যাসিস্ট্যান্ট রিটার্নিং অফিসার ও পর্যবেক্ষক ছাড়া আর কেউ মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারবেন না। সকাল আটটায় পোস্টাল ব্যালট, সার্ভিস ব্যালটের গণনার পর ইভিএমের ভোটগণনা শুরু হবে। তা শেষ হতে বড়জোর বিকেল চারটে গড়াবে। তারপর শুরু হবে ভিভিপ্যাটের গণনা। একটি লোকসভা কেন্দ্রে ৩৫টি ভিভিপ্যাটের স্লিপ গণনা হবে। তা শেষ হতে গভীর রাত বা ভোর হয়ে যেতে পারে বলে মনে করছে নির্বাচন কমিশন।

ভোট গণনা যাতে সুষ্ঠভাবে হয় সেজন্যে প্রত্যেক জেলায় নির্বাচনী আধিকারিকদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কাউন্টিং স্টেশনগুলিতে ভিডিওগ্রাফী করারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সব কটি গণনা কেন্দ্রে সিসিটিভিতে মুড়ে ফেলা হয়েছে। সবথেকে বেশি রাউন্ড গণনা হবে কলকাতা দক্ষিণ ও ঝাড়গ্রামে। সেখানে ২৫ রাউন্ড করে গণনা হবে। সব থেকে কম রাউন্ড গণনা হবে রায়গঞ্জ ও বালুরঘাটে। ওই দু’টি কেন্দ্রে ১০ রাউন্ড করে গণনা হবে। বাকি জায়গায় ১৭ থেকে ২০ রাউন্ড গণনা হবে।