স্টাফ রিপোর্টার, বর্ধমান: আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের ঘোষণার আগে বর্ধমান জেলা প্রশাসন ও নির্বাচন কমিশন এক বৈঠক করেন৷ এই বৈঠকের পর পূর্ব বর্ধমান জেলার নির্বাচনী কাজকর্ম সম্পর্কে বিস্তারিত রিপোর্ট নিয়ে যান নির্বাচন কমিশনের পশ্চিমবঙ্গের সিইও ড.আরিজ আফতাব৷ পাশাপাশি তিনি ও অ্যাডিশনাল সিইও ওঙ্কারসিং মীনা নির্বাচনী প্রস্তুতির কাজ খতিয়ে দেখেলেন৷

বৈঠক শেষে আরিজ আফতাব জানান, সামনেই লোকসভা ভোট৷ তাই তার আগে ভোট সংক্রান্ত সমস্ত বিষয়ই এদিন খতিয়ে দেখা হয়েছে। জেলা প্রশাসন ভোটের জন্য কি কি প্রস্তুতি নিয়েছেন তা জানিয়েছেন। যদিও জেলায় স্পর্শকাতর বুথের সংখ্যা কিংবা আধা সামরিক বাহিনী কি পরিমাণ থাকবে তা নিয়ে এদিন তিনি জানিয়েছেন৷ আধা সামরিক বাহিনী কি সংখ্যক থাকবে বা থাকবে কিনা সেই বিষয়ে কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশন সিদ্ধান্ত নেবে। এখনও এই বিষয়ে কিছু জানানো হয়নি।

জেলা প্রশাসনের সঙ্গে এই বৈঠকে হাজির ছিলেন জেলা শাসক অনুরাগ শ্রীবাস্তব, অতিরিক্ত জেলাশাসক (নির্বাচন) অরিন্দম নিয়োগী, জেলা পুলিশ সুপার ভাস্কর মুখোপাধ্যায় প্রমুখ।

এদিন জেলার দৃষ্টিহীন ভোটারদের জন্য ভোটার তালিকায় নাম তোলার জন্য, নাম সংশোধন প্রভৃতির জন্য বিশেষ ব্রেইল প্রথায় মুদ্রিত ফর্মের উদ্বোধন করেন আরিজ আফতাব। জেলায় মোট প্রতিবন্ধী ১২ হাজার ৫৬৯জন। তার মধ্যে দৃষ্টিহীন ভোটার রয়েছেন ১৮৯৮ জন, মূক ও বধির ভোটার রয়েছেন ২ হাজার ৫৯৯ জন।

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে পূর্ব বর্ধমান জেলায় মোট ভোটারের সংখ্যা ৩৮ লক্ষ ৮০ হাজার ৯০১ জন। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার রয়েছেন ১৯ লক্ষ ৮০ হাজার ৭৬৭জন, মহিলা ভোটার রয়েছেন ১৯ লক্ষ ৫৪ জন এবং তৃতীয় লিঙ্গের ভোটার রয়েছেন ৮০জন। এছাড়াও সার্ভিস ভোটার রয়েছেন ৩ হাজার ১০১ জন। পূর্ব বর্ধমান জেলায় বর্ধমান – দুর্গাপুর লোকসভার মধ্যে রয়েছে বর্ধমান উত্তর ও বর্ধমান দক্ষিণ বিধানসভা, মন্তেশ্বর, ভাতার এবং গলসী বিধানসভা।

অন্যদিকে বর্ধমান পূর্ব লোকসভা কেন্দ্রের অধীনে রয়েছে রায়না, জামালপুর, মেমারী, কালনা, উত্তর ও দক্ষিণ পূর্বস্থলী এবং কাটোয়া বিধানসভা। অপরদিকে বাঁকুড়ার বিষ্ণপুর লোকসভার অধীনে রয়েছে বর্ধমানের খণ্ডঘোষ বিধানসভা এবং বোলপুর লোকসভার অধীনে রয়েছে আউশগ্রাম, কেতুগ্রাম এবং মঙ্গলকোট বিধানসভা।

এদিন বৈঠক শেষে জেলাশাসক অনুরাগ শ্রীবাস্তব জানিয়েছেন, ভোটের নির্ঘণ্ট এখনও প্রকাশিত হয়নি। জেলায় কতগুলি স্পর্শকাতর বুথ রয়েছে সেই বিষয়ে এখনও কোনো পূর্ণাঙ্গ তালিকা তৈরি হয়নি। জেলা পুলিশ, প্রশাসন ছাড়াও বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলির পক্ষ থেকে এই বিষয়ে আবেদন বা অভিযোগ আসার পর পূর্ণাঙ্গ তালিকা তৈরি হবে৷ তাঁরা সমস্ত রকমের ব্যবস্থাই তৈরি রাখছেন। নির্বাচন কমিশন থেকে যেভাবে ব্যবস্থাপনা চাওয়া হবে তা তাঁরা দ্রুত যাতে দিতে পারেন তার জন্য তৈরি রয়েছেন। বিভিন্ন বুথে ওয়েব ক্যাম, ভিডিও ফটোগ্রাফির ব্যবস্থাও তাঁরা তৈরি রাখছেন।

প্রসঙ্গত বিগত লোকসভা ও বিধানসভা নির্বাচনের পাশাপাশি গত পঞ্চায়েত নির্বাচনকে ঘিরে পূর্ব বর্ধমান জেলায় বিভিন্ন জায়গায় রীতিমত উত্তেজনার পারদ চরেছিল। আর তাই আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের আগে সমস্ত পরিস্থিতির বিষয়ে অবহিত হয়ে গেলেন রাজ্যের মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিক৷