নয়াদিল্লি: দিল্লি বিধানসভা ভোটের প্রচারে সিএএ বিরোধী আন্দোলনকারীদের নিয়ে করা মন্তব্য়ের জেরে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুরকে নোটিস পাঠাল নির্বাচন কমিশন। দিল্লিতে একটি নির্বাচনী সভায় সিএএ বিরোধী আন্দোলনকারীদের উদ্দেশ্যে হুমকি দেন অনুরাগ। নির্বাচনী সভায় ‘দেশ কে গদ্দারোঁ কো, গুলি মারো শালোঁ কো’ মন্তব্যের জন্য কেন্দ্রীয় অর্থ প্রতিমন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুরকে নোটিস নির্বাচন কমিশনের৷ আগামী ৩০ জানুয়ারির মধ্যে অনুরাগ ঠাকুরকে লিখিতভাবে তাঁর জবাব জানাতে বলেছে কমিশন।

নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, দিল্লিতে ভোটের প্রচারে বিজেপি নেতার ওই স্লোগান নির্বাচনী নিয়ম লঙ্ঘন করেছে৷ অনুরাগ ঠাকুর ছাড়াও কমিশনের নোটিস পেয়েছেন আরও এক বিজেপি সাংসদ প্রবেশ ভার্মা৷ দিল্লিতে ক্ষমতায় এলে এক ঘণ্টার মধ্যে শাহিনবাগ ‘সাফ’ করে দেওয়ার হুমকি দিয়েছেন প্রবেশ। একইসঙ্গে সরকারি জমিতে তৈরি হওয়া মসজিদ ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়েছেন ওই বিজেপি নেতা। প্রবেশের এই মন্তব্য়ের জেরে তাঁকেও শোকজ নোটিস পাঠিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

দিল্লি বিধানসভা ভোট যতই এগোচ্ছে রাজধানীতে রাজনৈতিক উত্তেজনার পারদ ততই বাড়ছে। দিল্লি জুড়ে এখন নির্বাচনী প্রচার জমজমাট। একদিকে বিগত ৫ বছরের উন্নয়নের খতিয়ান নিয়ে আম-আদমির দরবারে আপ নেতারা। উলটোদিকে আপ সরকারকে কাঠগড়ায় তুলে প্রচারে শান দিচ্ছে গেরুয়া শিবির। একইভাবে ক্ষমতায় ফিরতে মরিয়া চেষ্টা চালাচ্ছে কংগ্রেসও। বিজেপির তাবড় নেতারা রাজধানীর নির্বাচনী প্রচারে যোগ দিচ্ছেন।

শুধু অনুরাগ ঠাকুর বা প্রবেশ ভার্মারাই নন। বিজেপির শীর্ষ নেতা তথা কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহও দিল্লিতে একের পর এক নির্বাচনী সভায় সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন বিরোধী আন্দোলনকারীদের তোপ দেগে চলেছেন। সম্প্রতি দিল্লির একটি জনসভায় অমিত শাহ বলেন,‘৮ ফেব্রুয়ারি দিল্লিতে ইভিএমে এমনভাবে বোতাম টিপুন, যাতে আপনার ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ ঘটে। যদি বিজেপিকে ভোট দেন, তাহলে দেশে অসংখ্য শাহিনবাগের মতো ঘটনা আটকে দেওয়া যাবে।’ যদিও অমিত শাহের এই মন্তব্য়ের জন্য় কমিশনের তরফে তাঁকে এখনও জবাবদিহি করতে বলে নোটিশ পাঠানো হয়নি।

আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি দিল্লিতে বিধানসভা ভোট৷ দিল্লির ৭০টি বিধানসভা কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ হবে৷ আগামী ১১ ফেব্রুয়ারি দিল্লি বিধানসভার ভোটের ফল ঘোষণা হবে৷

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ