সুমন মণ্ডল, তমলুক: পূর্ব মেদিনীপুরে এসেই মানুষের পাশে থাকার আশ্বাস দিল নির্বাচন কমিশনের স্পেশাল অবজারভার পাঞ্জাবের নির্বাচন কমিশনের সিইও ভি.কে.সিং। শনিবার পাঁচ সদস্যের একটি দল পশ্চিম মেদিনীপুর থেকে সোজা পূর্ব মেদিনীপুরের জেলাশাসকের দফতরে এসে হাজির হয়। সেখানেই সাংবাদিক সম্মেলনে ভি.কে.সিং জানিয়েছেন এলাকায় ঘুরে মানুষের সঙ্গে কথা বলবেন তারা। কোনও রকম অভিযোগ এলেই তা দ্রুত মেটানোর জন্য সব রকম ভাবে নির্বাচন কমিশন কাজ করবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

এবারের বিধানসভা নির্বাচনে নজিরবিহীন ভাবে নিরাপত্তা দেওয়ার ব্যবস্থা করেছে নির্বাচন কমিশন। আগামী ৫ মে রাজ্যের শেষ দফা নির্বাচন হবে পূর্ব মেদিনীপুরে। কিন্ত তার অনেক আগে থেকেই পূর্ব মেদিনীপুরে কেন্দ্রীয় বাহিনী রুট মার্চ শুরু করেছে একাধিক এলাকায়। ২০০৭ সালে নন্দীগ্রামের জমি আন্দোলনের পর থেকেই এই জেলা নির্বাচনের মুখে বিশেষ গুরুত্ব পেয়ে আসছে নির্বাচন কমিশনের কাছে। সেই মতোই রাজ্যে আসা কেন্দ্রীয় বাহিনীর মধ্যে এক কোম্পানি প্রথমেই নন্দীগ্রামে পাঠিয়ে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। পাশাপাশি গোটা জেলায় ইতিমধ্যে সরকারী জায়গায় রাজনৈতিক দলগুলির দেওয়াল লিখনগুলি নির্বাচন কমিশন মুছে দিয়েছে, পাশাপাশি ফ্লেক্স ও পোষ্টারগুলিও পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে খুলে দিয়েছে নির্বাচন কমিশনের কর্মীরা।

এদিন বিকেলে পূর্ব মেদিনীপুর জেলা পরিষদে এসে ভি.কে.সিং প্রথমেই এখানকার  জেলা শাসক ও পুলিশ সুপারের সঙ্গে বৈঠক করেন। কিছু সময় বৈঠক সেরেই বেরিয়ে এসে সাংবাদিকদের তিনি জানান, এখন পর্যন্ত নির্বাচন কমিশনের পোর্টালে সব মিলিয়ে প্রায় ৮৫টি অভিযোগ জমা পড়েছিল। যার মধ্যে প্রায় ৭৭টি অভিযোগের সমাধান করে দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, তাঁরা বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে সাধারণ মানুষদের সঙ্গে কথা বলবেন। তবে পূর্ব মেদিনীপুরে এখনও পর্যন্ত বড় ধরণের কোনও অভিযোগ নির্বাচন কমিশনের কাছে আসেনি বলে জানিয়েছেন তিনি। কোনও অভিযোগ এলে তা দ্রুত খতিয়ে দেখা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। জেলা শাসকের দপ্তর থেকে বেরিয়ে নির্বাচন কমিশনের দলটি হলদিয়ার উদ্দ্যেশ্যে রওনা হয়েছে বলে প্রশাসন সূত্রে জানানো হয়েছে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ