কলকাতা: রবিবার বাগান নির্বাচন ঘিরে সারাদিনই খণ্ডযুদ্ধ চলল নেতাজী ইন্ডোর স্টেডিয়ামে৷ একাধিক ইস্যুতে বিরোধী গোষ্ঠীকে কোনঠাসা করতে ঝামেলা বাধান সুব্রত ভট্টাচার্য্য৷ কখনও নেতাজী ইন্ডোরের গেটের বাইরে বিরোধীদের ব্যানার টাঙানো কিম্বা কখনও ভুয়ো ভোটার পরিচয় পত্র নিয়ে চ্যালেঞ্জ৷ এমনকী ভোটে জালিয়াতি হচ্ছে বলেও শাসক গোষ্ঠীর সঙ্গে ঝামেলা বাধান বাগানের ঘরের ছেলে বাবলু৷ কিন্তু নির্বাচন কমিশনার সুশান্ত চ্যার্টাজী সাংবাদিক সম্মেলনে জানিয়ে দিলেন যে সুব্রত’র থেকে তিনি কোনও লিখিত অভিযোগই পাননি৷

কলকাতা হাইকোর্টের প্রাক্তন বিচারপতি সুশান্ত জানান, এদিন সকাল ন’টা থেকে বিকাল পাঁচটা পর্যন্ত মোট ৯১৩৫ জন ভোটারের মধ্যে ৫১১২ জন এসেছিলেন ভোট দিতে৷ কোনও ক্রস ভোট বা টেন্ডার ভোটের দৃষ্টান্ত নেই৷ ২১টা বুথেই ভোট পড়েছে৷ এর মধ্যে ২০টি বুথ সাধারণ ভোটারদের জন্য ও একটি বুথ লাইফমেম্বারদের জন্য ছিল৷ ভোট দিতে এসেছিলেন কলকাতা হাইকোর্টের বর্তমান বিচারপতি অসীম রায়৷ তিনি আচমকাই দেখেন জনা তিনেক ব্যক্তিকে বিশেষ সুবিধা দেওয়া হচ্ছে ভোটের লাইনে৷ তখন তিনি পুলিশের কাছে জানতে চান কেন তাঁরা বাড়তি সুযোগ সুবিধা পাচ্ছে৷ পুলিশ অসীম রায়কে বলেন যে তাঁরা বিধানসভার সদস্য৷ কিন্ত অসীম বাবুর সন্দেহ হওয়ায় তিনি ফের প্রশ্ন করেন৷ পুলিশ বিরক্ত হয়ে অসীম বাবুর সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করায় তিনি নিজের পরিচয় জানান৷ পুলিশ তৎক্ষনাৎ ক্ষমা চেয়ে নেয়৷ যদিও বিষয়টি কলকাতার পুলিশ কমিশনার সুরজিৎ কর পুরকায়স্থকে ফোন মারফত জানান অসীম রায়৷ যদিও ব্যাপারটা পরে মিটমাট হয়ে যায়৷ এছাড়া আরও একটি ঘটনায় সমস্যায় পড়েন প্রাক্তন ফুটবলার দুলাল বিশ্বাস৷ ২০১৪-১৫ সদস্যপদের কার্ড না-আনায় তাঁকে ভোট দিতে দেওয়া হয়নি৷ এ সবই জানালেন সুশান্ত বাবু৷ শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী এখনও পর্যন্ত ৪০ শতাংশ ভোট পড়েছে৷ রাত দশটা-সোয়া দশটার মধ্যে ভোটের ফল বেরিয়ে যাবে৷