মুম্বই: লাগবে না আধার কার্ড। সচিত্র পরিচয়পত্র বা ভোটার কার্ডই নাগরিকত্বের বড় প্রমাণ। আর তা দেখাতে পারলে প্রয়োজন পড়বে না অন্য কোনও কাগজ দেখানোর। সম্প্রতি এমনই নির্দেশ দিয়েছে মুম্বইয়ের একটি আদালত।

সূত্রের খবর, ২০১৭ সালে অবৈধভাবে ভারতে প্রবেশ করে বসবাস করার অভিযোগে মহারাষ্ট্রের রাজধানী মুম্বই থেকে এক দম্পতিকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ওই দম্পতির নাম হল আব্বাস শেখ (৪৫) ও রাবিয়া খাতুন (৪০)। তাঁরা বাংলাদেশি বলে সন্দেহ প্রকাশ করা হয়েছিল। কিন্তু, শুনানি শেষ হওয়া পর তাঁদের বেকসুর খালাস করে দেয় মুম্বইয়ের এসপ্ল্যানেড কোর্টের বিচারক।

এই বিষয়ে ঐ বিচারক জানান, জন্ম এবং বসবাসের আসল শংসাপত্র হিসেবে পাসপোর্ট সহ বিভিন্ন ডকুমেন্ট কোনও ব্যক্তির ভারতের নাগরিকত্ব প্রমাণের জন্য যথেষ্ট। এমনকী সচিত্র পরিচয়পত্রও একটি গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্ট। কারণ, এই পরিচয়পত্র তৈরি করার সময় জন প্রতিনিধিত্ব আইন অনুযায়ী ৬ নম্বর ফর্ম ফিলাপ করতে হয়। তাতে পরিষ্কার ভাবে উল্লেখ করতে হয় যে আবেদনকারী একজন ভারতীয়। এবং ওই দাবি যদি পরবর্তীকালে কোনও দিন মিথ্যা প্রমাণিত হয় তাহলে তাঁকে উপযুক্ত শাস্তি দেওয়া হবে। ফলে এই বিষয়ে আব্বাস শেখ ও রাবিয়া খাতুনের কাগজপত্র পরীক্ষা করে দেখা হয়েছে। তাতে কোনও ভাবে তাঁদের বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া অভিযোগের প্রমাণ পাওয়া যায়নি। বরং তাঁরা সত্যি বলছেন এটাই প্রমাণিত হয়েছে।

জানা গিয়েছে, ওই দম্পতিকে গ্রেফতার করার সময় তাঁরা জাল কাগজপত্র দেখিয়ে ছিলেন বলে অভিযোগ পুলিশের। কিন্তু, এর কোনও প্রমাণ আদালতের শুনানির সময় জমা করতে পারেনি তারা। এই বিষয়টি উল্লেখ করে বিচারক তাদের ভর্ৎসনাও করেন। বলেন, ”ওই দম্পতির বিরুদ্ধে জাল কাগজপত্র জমা করার অভিযোগ আনা হয়েছিল। কিন্তু, তার স্বপক্ষে কোনও প্রমাণ আদালতে জমা দিতে পারেনি পুলিশ। তাই ওই দম্পতিকে সসম্মানে মুক্তি দেওয়া হল।”