রায়পুর: টিভি দেখতে ডেকে ৫ নাবালিকা মেয়েকে যৌন হেনস্থা করার অভিযোগে গ্রেফতার করা হল ৬৫ বছরের এক বৃদ্ধকে। পুলিশ জানিয়েছে, সোমবার এঘটনা ঘটেছে ছত্তিশগড়ের বালোদ জেলাতে।

বালোদ জেলার পুলিশ সুপার জিতেন্দ্র মীনা জানিয়েছেন, ২৮ জুলাই থেকে ৩০ শে জুলাই পর্যন্ত তিন দিন ওই ব্যক্তি টানা এই কাজ চালিয়ে গেছেন। নাবালিকারা শেষ দিন বাবা মায়ের কাছে জানাতেই বিষয়টি প্রকাশ্যে আসে। এরপরেই পুলিশ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে।

প্রাথমিক তদন্তে জানা গিয়েছে, অভিযুক্ত ব্যক্তি তাঁর বাড়ির পাশে খেলতে আসা ৮ থেকে ১১ বছরের মেয়েদের তাঁর বাড়িতে টিভি দেখতে ডাকত। সেখানে তাঁদেরকে টিভির সামনে বসিয়ে এক এক জন করে ঘরে নিয়ে গিয়ে যৌন নির্যাতন চালাত।

এক নাবালিকা যখন আর খেলতে যেতে চাইত না ও রীতিমতো চুপচাপ থাকত, তখন তাঁর মা তাঁকে জেরা করতেই সব ঘটনা খুলে বলে সে। এরপরেই প্রকাশ্যে আসে এই ঘটনা।

আরও চারটি মেয়ে তাদের বাবা মায়ের কাছে ওই ঘটনা সম্পর্কে বলে ও তাঁরা পুলিশে যোগাযোগ করেন।

সূত্রের খবর, ভারতীয় দন্ডবিধি ধারা ৩৪৪ (এ) (যৌন হয়রানি), ৩৬ (কিডন্যাপিং), ৩৭৬ (ধর্ষণ) সহ পসকো ধারায় অভিযুক্তের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, পরীক্ষায় নাবালিকাদের শারীরিক পরীক্ষার জন্য রিপোর্ট করতে দেওয়া হয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।