প্যারিস: আইফেল টাওয়ারে নাকি রাখা রয়েছে একটি বোমা! উড়ো ফোনে প্যারিসের পুলিশের কাছে এহেন খবর আসতেই ঘুম উড়েছিল কর্তাদের। তড়িঘড়ি তৎপর হয়ে ওঠে গোটা শহরের পুলিশ বিভাগ। চটজলদি খালি করা হয় আইফেল টাওয়ার। উড়োফোন ঘিরে তৎপরতা বাড়ে পুলিশ বিভাগের।

এরপরে দীর্ঘক্ষণ ধরে বিস্ফোরকের খোঁজে তল্লাশি চালানো হয় আইফেল টাওয়ার চত্বর জুড়ে। তবে কোনও রকম বিস্ফোরক খুঁজে পাওয়া যায়নি। পুলিশ বিভাগের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, প্যারিসের এই স্মৃতিসৌধতে তল্লাশি চালানো হলেও কোনও বিস্ফোরক উদ্ধার করা যায়নি।

বিস্ফোরকের ওই উড়ো ফোন আসার পরেই আর কোনও ঝুঁকি নিতে চায়নি প্যারিসের পুলিশ বিভাগ। তৎক্ষণাৎ পর্যটক, রেস্তোঁরা কর্মী এবং সাধারণ কর্মী সহ প্রায় ১০০ এর বেশি লোককে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর শুরু হয় তল্লাশির কাজ। তবে তল্লাশিতে কিছু উদ্ধার না হওয়ার পরে দুপুরের দিকে ফের খুলে দেওয়া হয় আইফেল টাওয়ার।

সাধারণ মানুষকে যখন সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল, তখন সেখানে উপস্থিত ছিলেন ম্যানুয়েল নামে এক গাইড। তাঁর দাবি, যখন সাধারণ মানুষকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল, তখন কোনও রকম আতঙ্কের পরিবেশ সৃষ্টি হয়নি। গোটা প্রক্রিয়া হয়েছে সুষ্ঠ ভাবে।

যদিও এই ঘটনা সম্পর্কে সংবাদমাধ্যমে কোনও প্রতিক্রিয়া জানাননি আইফেল টাওয়ার ম্যানেজমেন্ট কর্তৃপক্ষ। উল্লেখ্য, ১৩১ বছরের পুরোনো এই টাওয়ারটি পর্যটকদের কাছে প্যারিস তথা ফ্রান্সের অন্যতম আকর্ষণ। এই টাওয়ারের দৈর্ঘ্য রয়েছে ১০৬২ ফুট।

সাধারণ সময়ে দৈনিক প্রায় ২৫ হাজার মানুষ এই টাওয়ার দেখতে আসেন। তবে বর্তমানে করোনার জেরে ভ্রমণার্থীর সংখ্যা অনেক কম। মারণ ভাইরাসের জেরে ভ্রমণের ক্ষেত্রে বাধানিষেধ রয়েছে ফ্রান্সে।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।