স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা : শান্তিনিকেতনের পৌষমেলা একটা বাঙালি তথা বিশ্ববাসীর কাছে একটা আবেগ। প্রত্যেক বছরই শান্তিনিকেতন আশ্রমের প্রতিষ্ঠা দিবসের দিন পৌষমেলার আয়োজন করে বিশ্বভারতী। বিশ্বভারতী আয়োজনের দায়িত্ব না নিতে চাওয়ায় শান্তিনিকেতনের ঐতিহ্যবাহী পৌষমেলা বন্ধের পথে। এবার এই ইস্যুতেই মুখ খুললেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়।

অন্ধকারে পৌষমেলার ভবিষ্যত। বিশ্বভারতীর এহেন সিদ্ধান্তে ক্ষোভ পুঞ্জিভূত হয়ে চলেছে শান্তিনিকেতনের আকাশে। এই পরিস্থিতিতে আসরে নামলেন খোদ শিক্ষামন্ত্রী। শনিবার এক সাংবাদিক সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, “পৌষমেলা বন্ধ হোক, চাই না। আমি উপাচার্যের সঙ্গে কথা বলেছি। পৌষমেলা একটা আবেগ। প্রয়োজনে সবার সঙ্গে কথা বলব। সবাই মিলে বসব।”

পৌষমেলার আয়োজন নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী নিজে উদ্যোগী হওয়ায় আশার মুখ দেখছেন বিভিন্ন মহল। প্রসঙ্গত, দূষণ ও আরও নানাবিধ কারণে ঐতিহ্যবাহী পৌষমেলা আয়োজনে ফি বছর নাভিশ্বাস উঠছিল বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষের। শেষমেশ চলতি মাসে বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়, এবার আর পৌষমেলার আয়োজন করবে না তারা।

উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী সহ বিশ্বভারতীর সমস্ত আধিকারিক ও শান্তিনিকেতন ট্রাস্টের সদস্যরা বৈঠকে স্থির হয় পৌষমেলা আয়োজন করা হবে না। ফলে এককথায় চলতি বছর থেকে পৌষমেলা বন্ধ হওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়ে সর্বত্র। যার তীব্র প্রতিক্রিয়া হয় সব মহলে।