নয়াদিল্লি: ইয়েস ব্যাংকের কর্ণধার রানা কাপুকে ২ কোটি টাকায় ছবি বিক্রি করেছিলেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। সেই ছবিই এবার বাজেয়াপ্ত করে নিয়ে গেল ইডি। ইতিমধ্যেই রানা কাপুরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এবার তাঁর ওই ছবির কেনার বিষয়টি প্রকাশ্যে এসেছে, যা তিনি তছরূপের টাকায় কিনেছিলেন বলে ইডি সূত্রে খবর।

মকবুল ফিদা হুসেনের আঁকা রাজীব গান্ধীর ওই ছবি ছিল প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর কাছে। আর সেই ছবিই বছর কয়েক আগে ২ কোটি টাকা দিয়ে কিনেছিলেন রানা কাপুর। সোমবার ইডি আধিকারিকরা ওই ছবি তুলে নিয়ে যায় দফতরে।

সূত্রের খবর, এই ছবির বিষয়ে আগেই জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। এমনকি অদূর ভবিষ্যতে এই বিষয়ে প্রিয়াঙ্কা গান্ধীকেও জেরা করা হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

‘ইন্ডিয়া টুডে’তে প্রকাশিত হয়েছে প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর রানা কাপুরকে লেখা চিঠি। সেখানে ওই ছবি বিক্রির কথা লেখা আছে।

২০১০-র ৪ জুনের ওই চিঠিতে প্রিয়াঙ্কা গান্ধী লিখছেন, ‘এমএফ হুসেনের আঁকা আমার বাবার ছবিটি কেনার জন্য ধন্যবাদ। এটি এমএফ হুসেন ১৯৮৫-তে উপহার দিয়েছিলেন কংগ্রেস দলের ১০০ বছর পূর্তিতে।’

ইডি সূত্রে জানা গিয়েছে, কংগ্রেস তথা প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর সম্পত্তি ছিল ওই ছবি।

প্রকাশ্যে এসেছে মিলিন্দ দেওরার একটি চিঠিও। সেখানে মিলিন্দ দেওরা রানা কাপুরকে লিখেছেন, ‘আপনি ছবিটি কেনার ইচ্ছাপ্রকাশ করেছিলেন। দয়া করে এই ব্যাপারে সরাসরি প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর সঙ্গে কথথা বলুন। ইডি-র দাবি, তছরূপের টাকাতেই ওই ছবি কিনেছিলেন রানা কাপুর।

রানা কাপুরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় ডিএইচএফএল সংস্থাকে এই ব্যাংকের ঋণ দেওয়ার ব্যাপারে৷ আর সেই অভিযোগেই তাঁকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

ডিএইচএফএল-এর বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে ৭৯টি ভুয়ো সংস্থা এবং এক লক্ষ গ্রাহকের মাধ্যমে ১৩,০০০ কোটি টাকা পাচারের এবং তারই সঙ্গে জড়িত টাকা পাঠানোর এজেন্সির সূত্র ধরে রানা কাপুরের বাড়িতে হানা দেওয়া হয় ৷ কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন জানিয়েছেন, ইয়েস ব্যাংকের ব্যর্থতার পিছনে রয়েছে ডিএইচএফএল মতো কর্পোরেট সংস্থাকে দেওয়া অর্থের ক্রমশ শুকিয়ে যাওয়া৷

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ