কলকাতা: নববর্ষে ভিড়ের নিরিখে সবাইকে পিছনে ফেলে এক নম্বরে জায়গা করে নিল ইকো পার্ক। বর্ষবরণের রাতে যেমন পার্ক স্ট্রিট তেমনি নববর্ষে মানুষের অভিমুখ ছিল ইকো পার্ক। নতুন বছরের প্রথম দিনে নিজেই নিজের রেকর্ড ভাঙলো এই পার্ক। এদিন দর্শকদের সংখ্যা ছিল লক্ষাধিক।

হিডকো চেয়ারম্যান দেবাশিস সেন জানিয়েছেন, পয়লা জানুয়ারি তথা নববর্ষে ইকো পার্কে এসেছিলেন ১লক্ষ ১৪ হাজার ৮৯ জন। যা কলকাতার অন্যান্য দর্শনীয় স্থানগুলোকে অনেকটাই পেছনে ফেলে দিয়েছে।

এদিকে ২৫ ডিসেম্বর বড়দিনে ইকো পার্কে এসেছিলেন ৭৭ হাজার ৫০০ জন। সেদিন ও জনসংখ্যার শীর্ষে ছিল জনসংখ্যার শীর্ষে ছিল ছিল এই পার্ক। দ্বিতীয় স্থানে ছিল চিড়িয়াখানা। বড়দিনে আলিপুর চিড়িয়াখানায় এসেছিলেন ৬৮ হাজার । সেখানে সায়েন্স সিটিতে ছিল ২০ হাজার, ভারতীয় জাদুঘরে ১১ হাজার ৫০০জন। এবং ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালে ছিল ৩২ হাজার ৫০০জন।

নববর্ষে ভিড় সামলাতে এবং এয়ারপোর্টের রাস্তা সচল রাখতে তৎপর ছিল বিধাননগর কমিশনারেটের পুলিশ। পুলিশের পক্ষ থেকে জানা গিয়েছে, বড়দিনে ইকো পার্কে মানুষের ভিড় থেকে শিক্ষা নিয়ে নববর্ষের ভিড় সামলাতে এবং অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে মোতায়েন ছিল প্রচুর পুলিশ। পাশাপাশি অপরাধ আটকাতে সাদা পোশাকের পুলিশ ভিড়ের ভিতরে মোতায়েন ছিল।

ইকো পার্কে একটি দ্বীপ তৈরি করা হয়েছে। যার নাম “সবুজ সাথী”। এই দ্বীপ ইকো পার্ক বিশাল হ্রদের কেন্দ্রে অবস্থিত। তার আয়তন ৭ একর। এখানে শুধুমাত্র নৌকা দ্বারা পৌঁছান যেতে পারে। এটি একটি নির্বাসিত দ্বীপ। এই সবুজ সাথী দ্বীপে একটি আশ্চর্যজনক কাচ ঘর তৈরি করা হয়েছে। যার টানে মানুষ ইকো পার্কে ছুটে আসেন। এছাড়া রয়েছে আরও অনেক আশ্চর্য জিনিস।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।