সুভাষ বৈদ্য, কলকাতা: সপ্তদশ লোকসভা ভোট গ্রহণ এক এক করে রাজ্যের ষষ্ঠ দফা পার করেছে৷ বাকি আর মাত্র এক দফায় ভোট৷ অর্থাৎ শেষ দফায় থাকছে সবচেয়ে বেশি কেন্দ্রীয় বাহিনী৷ তাই বাহিনী ও ভোট কর্মীদের জন্য তুলে নেওয়া হয়েছে হাজার হাজার সরকারি ও বেসরকারি বাস৷ এর মধ্যে রয়েছে প্রায় ৫ হাজার বেসরকারি৷ ফলে কলকাতা লাগোয়া দক্ষিণ ২৪ পরগনার শহর ও শহরতলিতে দুর্ভোগে পড়তে পারেন সাধারণ যাত্রীরা৷

জয়েন্ট কাউন্সিল অব বাস সিন্ডিকেটের সাধারণ সম্পাদক তপন বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, কমিশন প্রতিবারই ভোটের সময় বাস নিয়ে থাকে৷ কিন্তু এবারই সবচেয়ে বেশি বাস নিয়েছে৷ সপ্তম দফায় ভোটের জন্য শহর ও শহরতলি থেকে প্রায় ৫ হাজার বাস তুলে নেওয়া হয়েছে৷ শুধু যে ভোটের দিনের জন্য তা নয়৷

বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই ভোটের কাজের জন্য বাস তুলে নেওয়া হয়েছে৷ এখনও ভোটের তিনদিন বাকি৷ আর ভোট শেষ হলেই যে বেসরকারি বাস পরিষেবা স্বাভাবিক হবে তাও নয়৷

তপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের কথায় ভোট গণনা শেষ না হওয়া পর্যন্ত রাস্তায় বাস কম থাকবে৷ লোকসভার ভোট গণনা হবে ২৩মে৷ গণনা শেষে কেন্দ্রীয় বাহিনী ও ভোট কর্মীদের যথাস্থানে পৌঁছে তারপরই বাসগুলো সংগঠনের হাতে আসবে৷ সেক্ষেত্রে ২৫ মে এর আগে শহর ও শহরতলিতে বেসরকারি বাস পরিষেবা স্বাভাবিক হবার সম্ভাবনা কম৷ এমনটাই মনে করছে বাস সিন্ডিকেট৷

ভোটের কাজে বাস ব্যবহারের জন্য বাস মালিকদের দু’ধরনের রিকুইজিশন দেওয়া হয়েছিল৷ চলতি মাসের শুরুতে ওই রিকুইজিশন নিয়ে বাস মালিকদের সঙ্গে বৈঠকে বসেছিল পাবলিক ভেহিকল ডিপার্টমেন্ট (পিভিডি)৷ সেখানে ভোট কর্মীদের জন্য ও পুলিশ বা কেন্দ্রীয় বাহিনীর জন্য বাস চেয়ে আলাদা আলাদাভাবে রিক্যুইজিশন দেওয়া হয়েছিল৷ সেইমত এদিন বাস তুলে নেওয়া হল৷ বাড়ি থেকে কর্মস্থলে যে সব সাধারণ মানুষের একমাত্র ভরসা বেসরকারি বাস৷ ফলে ওই সব নিত্য যাত্রীদের আগামী এক সপ্তাহ চরম দুর্ভোগে পরার সম্ভাবনা রয়েছে৷