স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: আসানসোলের সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়কে শোকজ করল নির্বাচন কমিশন৷ তাঁর বিরুদ্ধে নির্বাচনী বিধিভঙ্গের অভিযোগ আনা হয়েছে৷ মিডিয়া সার্টিফিকেশন ছাড়া তিনি কি ভাবে সোশ্যাল মিডিয়াতে বিজেপির থিম সং ছেড়ে দিয়েছেন সেই প্রশ্ন উঠছে তাঁর বিরুদ্ধে৷

বঙ্গ বিজেপির জন্য থিম সং তৈরি করেছেন বিজেপি নেতা তথা আসানসোলের সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়। রবিবার মুম্বইয়ের একটি স্টুডিওতে রেকর্ড করিয়েছেন সেই গান। যে গানের মূল কথা হল ফুটবে এবার পদ্মফুল, বাংলা ছাড়ো তৃণমূল। তৃণমূল কংগ্রেস বিরোধী প্রায় সকল শ্লোগান ব্যবহার করা হয়েছে ওই গানে। কটাক্ষ করা হয়েছে দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং তাঁর অনুগামীদের।

এই থিম সং নিয়েই শুরু হয় বিতর্ক। কারণ ওই গানে ব্যবহৃত হয়েছে অনেক শ্লোগান। যেগুলি বাম বামেরা ব্যবহার করে থাকে। ‘এই তৃণমূল আর না’, এই শ্লোগানটি ২০১৩ সাল থেকেই ব্যবহার করে বামেরা। ‘চোর গুণ্ডা দেশ চালায়, পুলিশ লুকায় টেবিলের তলায়’। এই শ্লোগানটি গত নভেম্বর মাসের শেষের দিকে কলকাতায় বামেদের মিছিলে শোনা গিয়েছিল। একই সঙ্গে শোনা গিয়েছিল ‘এই তৃণমূল আর না’ শ্লোগান।

আরও পড়ুন- প্রচারের গান: বাবুল সুপ্রিয়র বিরুদ্ধে এফআইআর

জানা গিয়েছে, বাবুল সুপ্রিয়র গানের ভিডিও চেয়ে পাঠিয়েছে নির্বাচন কমিশন। বিজেপির থেকে ওই ভিডিওটি চেয়ে পাঠানো হয়েছে। সংবাদ মাধ্যমে নির্বাচন সংক্রান্ত কোনও বিজ্ঞাপন দেওয়ার জন্য কমিশনের লিখিত অনুমতি লাগে। ওই শংসাপত্র ছাড়া কোনও বিজ্ঞাপন চালানো যায় না। সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দেওয়া বাবুল সুপ্রিয়ের গানটি আসলে একটি বিজ্ঞাপন।  নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গিয়েছে যে ওই গান প্রচারের ক্ষেত্রে কোনও অনুমতি নেওয়া হয়েছিল কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আক্রমণ করে গান বাঁধায় বাবুল সুপ্রিয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়। আসানসোল দক্ষিণ থানায় এফআইআর দায়ের করে পশ্চিম বর্ধমান স্টুডেন্টস লাইব্রেরি কোঅর্ডিনেশন কমিটি। ওই কমিটির সভানেত্রী ধৃতি ব্যানার্জ্জী বলেছিলেন “বাবুলের বিরুদ্ধেই এফআইআর করা হয়েছে৷ প্রচারের যে গান উনি গাইছেন, সেটি রুচিহীন৷ তৃণমূল কংগ্রেস ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে অপমান করেছে এই গান৷ সাংসদ হিসেবে ওনার আরও সংবেদনশীল হওয়া উচিত ছিল৷ ব্যঙ্গ করে উনি গান গাইতেই পারেন, কিন্তু কাউকে আপমান করার অধিকার ওনার নেই৷ আমরা একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা৷ আমরা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সমর্থন করি৷”

বামেদের মিছিলে সিপিএম-এর যুব সংগঠনের নেত্রী রিয়া মাইতির মুখে সেই শ্লোগানের ভিডিও ভাইরাল হয়ে গিয়েছিল। বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী রিয়া জানিয়েছিলেন যে শ্লোগানগুলি তার নিজের লেখা নয়। হলদিয়ার এক কমরেড ওই শ্লোগানগুলি লিখে দিয়েছিল বলে জানিয়েছিলেন ডিওয়াইএফএই এর বেলদা আঞ্চলিক কমিটির সদস্যা রিয়া।

আরও পড়ুন- বামেদের শ্লোগান ‘চুরি করে’ ‘কাঠগড়ায়’ বিজেপি

বামেদের ব্যবহৃত এই সকল শ্লোগান নিয়েই গান বেঁধে ফেলেছে বিজেপি। যা গায়ক-সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়র মস্তিষ্ক প্রসূত। তাঁর তত্ত্বাবিধানেই গানটি লিখেছেন অমিত চক্রবর্তী। কন্ঠ অবশ্য বাবুল সুপ্রিয়ের। যা নিয়ে শুরু হয়ে গিয়েছিল বিতর্ক। বামেদের পাশাপাশি তৃণমূল কংগ্রেস অনুগামীরাও বিজেপিকে কটাক্ষ করতে শুরু করে দিয়েছে।