নয়াদিল্লি: বিপাকে বিজেপির বিদায়ী সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়৷ নির্বাচনী বিধি ভঙ্গের জেরে জোড়া এফআইআর দায়ের হল আসানসোলের প্রার্থীর বিরুদ্ধে৷ নির্বাচন কমিশনই দুটি অভিযোগ দায়ের করেছে৷

বাবুলের বিরুদ্ধে প্রথম অভিযোগটি হল, কমিশনের অনুমতি ছাড়াই বঙ্গ বিজেপির জন্য থিম সং তৈরি করে তা সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করে দেন৷ দ্বিতীয় অভিযোগটি আরও গুরুতর৷

বাবুলের নির্বাচনী জনসভার ভিডিও রেকর্ডিং করছিলেন কমিশনের এক আধিকারিক৷ তাঁর ক্যামেরা কেড়ে নেওয়ার অভিযোগ ওঠে বাবুলের বিরুদ্ধে৷ গত মার্চেই থিম সঙের কারণে শোকজের মুখে পড়তে হয়েছিল আসানসোলের সাংসদের বিরুদ্ধে৷

এই থিম সং নিয়েই শুরু হয় বিতর্কের মুখে পড়তে হয় বাবুলকে কারণ ওই গানে ব্যবহৃত হয়েছে অনেক শ্লোগান। যেগুলি বাম বামেরা ব্যবহার করে থাকে। ‘এই তৃণমূল আর না’, এই শ্লোগানটি ২০১৩ সাল থেকেই ব্যবহার করে বামেরা। ‘চোর গুণ্ডা দেশ চালায়, পুলিশ লুকায় টেবিলের তলায়’। এই শ্লোগানটি গত নভেম্বর মাসের শেষের দিকে কলকাতায় বামেদের মিছিলে শোনা গিয়েছিল। একই সঙ্গে শোনা গিয়েছিল ‘এই তৃণমূল আর না’ শ্লোগান।

তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আক্রমণ করে গান বাঁধায় বাবুল সুপ্রিয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়। আসানসোল দক্ষিণ থানায় এফআইআর দায়ের করে পশ্চিম বর্ধমান স্টুডেন্টস লাইব্রেরি কোঅর্ডিনেশন কমিটি।

ওই কমিটির সভানেত্রী ধৃতি বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন “বাবুলের বিরুদ্ধেই এফআইআর করা হয়েছে৷ প্রচারের যে গান উনি গাইছেন, সেটি রুচিহীন৷ তৃণমূল কংগ্রেস ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে অপমান করেছে এই গান৷ সাংসদ হিসেবে ওনার আরও সংবেদনশীল হওয়া উচিত ছিল৷ ব্যঙ্গ করে উনি গান গাইতেই পারেন, কিন্তু কাউকে আপমান করার অধিকার ওনার নেই৷ আমরা একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা৷ আমরা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সমর্থন করি৷”