সোয়েতা ভট্টাচার্য : Kolkata24x7

সোয়েতা ভট্টাচার্য, কলকাতা: লোকসভা ভোটে রাজ্যের প্রায় সাড়়ে দশ বুথকে স্পর্শকাতর বলে চিহ্নিত করল ভারতের নির্বাচন কমিশন৷ রাজ্য পুলিশের পুরনো নথির সুত্র ধরে প্রাথমিকভাবে ১০৩৪৩ টি বুথকে স্পর্শকাতর বলে চিহ্নিত করা হয়েছে৷ রাজ্যের মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিকের দফতর সুত্রে খবর, দু’একদিনের মধ্যে আরও বেশ কিছু বুথকে স্পর্শকাতর হিসেবে চিহ্নিত করা হবে৷ আর তার ভিত্তিতেই ওই সমস্ত বুথে প্রয়োজনমতো আধাসামরিক বাহিনী মোতায়েন করে ভোটগ্রহণ পর্ব মেটানো হবে৷ অবাধ এবং শান্তিপূর্ণ ভোট করার লক্ষ্যে কমিশন উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে৷

বিগত ভোট এবং সদ্য হয়ে যাওয়া রাজ্যের পঞ্চায়েত ভোটের তথ্যকে সামনে রেখেই লোকসভায় অতি সংবেদনশীল বুথগুলিকে চিহ্নিত করা হয়েছে৷ বিশেষ করে গত পঞ্চায়েত ভোটে শাসকদলের বাড়বাড়ন্তের কথা মাথায় রেখেই বিরোধীরা কমিশনের কাছে আর্জি জানিয়েছিল৷ অবাধ এবং শান্তিপূর্ণ ভোট করানোর জন্য কমিশনের কাছে আবেদন জানিয়েছে প্রধান বিরোধী দল বিজেপি, সিপিএম এবং কংগ্রেস৷ যদিও বিরোধীদের এই দাবি এবং অভিযোগের জবাবে রাজ্যে মুখ্যমন্ত্রী বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, এটা রাজ্যের অপমান৷ এমন পরিস্থিতির মধ্যেই নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে জেলায় উত্তেজনা প্রবণ এলাকাগুলিকে চিহ্নিত করার কাজ শুরু করেছে৷ বিগত নির্বাচনগুলিতে কোন কোন এলাকায় কী ঘটনা ঘটেছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে৷ রাজ্যে প্রাথমিকভাবে ১০৩৪৩টি উত্তেজনাপ্রবণ বুথের তালিক তৈরি করেছে-

এই পরিসংখ্যান অনুযায়ী এখনও পর্যন্ত দক্ষিণ২৪ পরগণা সব থেকে বেশি স্পর্শকাতর এলাকা হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে ৷ এছাড়া এখনও অন্য স্পর্শকাতর এলাকাগুলিকে চিহ্নিত করার প্রক্রিয়া জোরকদমে চালাচ্ছে নির্বাচন কমিশন৷ সেই লক্ষ্যে রাজ্য পুলিশের কাছে বিভিন্ন থানা থেকে বিগত দিনের তথ্য-পরিসংখ্যানও তারা সংগ্রহ করেছে৷ স্পর্শকাতর বুথগুলিকে চিহ্নিত করে এখন থেকেই কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করে টহলদারি দেওয়া হবে বলে রাজ্যে মুখ্য নির্বাচনী অধিকারিকের দফতর থেকে জানা গিয়েছে৷৷ সুত্রটি জানাচ্ছে, প্রথম ধাপে ১২৫ কোম্পানি কেন্দ্রীয় আধাসেনা বাহিনী আসছে এই রাজ্যে৷ প্রয়োজন অনুযায়ী কেন্দ্রীয় বাহিনীর সংখ্যা আসতে আসতে বাড়ানো হবে৷ সুত্রের খবর, ২০ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী থাকবে স্ট্রং রুম এবং ভোট গণনা পর্বের নিরাপত্তার দায়িত্বে৷

অন্যদিকে শনিবার রাজ্যের নির্বাচনী প্রস্তুতি এবং আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে রাজ্যে আসছেন নির্বাচন কমিশনের ডেপুটি কমিশনার সুদিপ জৈন৷ ওইদিন তিনি রাজ্যের জেলাশাসক এবং পুলিশ সুপারদের সঙ্গে বৈঠকে বসবেন বলে জানা গিয়েছে৷ এই বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন রাজ্যের পাঁচ কমিশনারেটের কমিশনাররা৷ এই বৈঠকে রাজ্য সরকারের মুখ্যসচিব এবং রাজ্য সরকারের স্বরাষ্ট্র সচিবের উপস্থিত থাকার সম্ভাবনা রয়েছে৷ বৈঠকে রাজ্য পুলিশের ডিজি এবং এডিজি আইনশৃঙ্খলা উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে ভারতের নির্বাচন কমিশনেপ পক্ষ থেকে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.