কলকাতা: রাজ্যের শেষ দফায় ভোট ১৯মে৷ কলকাতাসহ ৯টি আসনে ভোট গ্রহন হবে৷ আর তার আগে কলকতায় আসেন উপ নির্বাচন কমিশনার সুদীপ জৈন৷ তিনি প্রশাসনের কর্তা ও রাজনৈতিক দলের সঙ্গে বৈঠক করেন৷ এবং একগুচ্ছ কড়া পদক্ষেপ এর কথা জানান৷

ষষ্ঠ দফায় মোট কেন্দ্রীয় বাহিনী থাকবে ৭১০ কোম্পানি৷ মোট কুইক রেসপন্স টিম ৫১২টি৷ শুধু কলকাতার জন্য ১৪৭ কোম্পানি বাহিনী৷ সোমবারই তারা কলকাতায় এসে পৌঁছেছে৷ ১০০ শতাংশ বুথেই থাকবে কেন্দ্রীয় বাহিনী৷ বিশেষ করে স্থানীয় ক্লাবের প্রতি নজর রাখবে কমিশন৷ নির্বাচনের ৪৮ ঘণ্টা আগে থেকে কলকাতা ও বিধাননগরের ভোটগ্রহণ কেন্দ্র সংলগ্ন সব ক’টি ক্লাব বন্ধ রাখার নির্দেশ দিল নির্বাচন কমিশন। কেবল নির্দেশই নয় ক্লাবগুলো বন্ধ রাখতে মাইকে প্রচার করা হবে৷

১৯ মে অর্থাৎ সপ্তম দফায় রাজ্যের ভোট গ্রহন হবে দমদম, বারাসত, বসিরহাট, কলকাতা উত্তর, কলকাতা দক্ষিণ, জয়নগর, মথুরাপুর, ডায়মন্ড হারবার ও যাদবপুর লোকসভা কেন্দ্রে। এই নয়টি আসনে ভোট চলাকালীন কোথাও অবৈধ জমায়েত হলেই তা রুখে দেওয়া হবে৷

ভোটগ্রহণ কেন্দ্রের ২০০ মিটারে মধ্যে কোনও ভাবেই পাঁচ জনের বেশি থাকতে পারবে না৷ কোনও জায়গায় কোনও গোলমালের খবর এলে পাঁচ মিনিটের মধ্যে কিউআরটিকে সেই ঘটনাস্থলে পৌঁছতে হবে৷ রাস্তা চিনতে যাতে অসুবিধে না হয়, সেই জন্য কিউআরটিতে থাকবেন এক জন করে পুলিশ কর্মী।