রবিবার, ছুটির দিন৷ চিরাচরিত নিয়মে আজ যেন সকালে খেতেই হবে লুচি আর আলুর দম৷ ছোলার ডাল বা আলুর দম যাই হোক না কেন, লুচি যেন মাস্ট৷ আর যাদের লুচি খুব প্রিয় অথচ সমস্যা রয়েছে তারা অনেকেই এর বিকল্প ভেবে ভেবেই মন মরা হয়ে যান৷ কিন্তু লুচি ছাড়াও ব্রেকফাস্ট ইন্টারেস্টিং করা যায় তা জানেন কী? নাহ্, এর উপাদানের জন্য দোকানে, শপিং মলের স্টোরে স্টোরে ঘুরে বেড়াতে হবে না৷ বাড়িতে থাকা জিনিসপত্রেই চটজলদি তৈরি করে নেওয়া যাবে৷

আজকাল দালিয়া, সুজি এসব সব বাড়িতে কম বেশি থাকে৷ তাই এইসব উপকরণে কীভাবে জলখাবার নামিয়ে ফেলা যায় তারই হদিশ রইল৷ প্রথমেই চোখ রাখা যাক সুজির উপমাতে৷ এতে ফ্যাটের পরিমাণ কম, প্রোটিনের মাত্রা অনেকটাই বেশি৷ এটি তাড়াতাড়ি হজমও হয়৷ দুপুরের খাবার খাওয়ার আগে পর্যন্ত যতটা এনার্জি প্রয়োজন, তার সবটাই জোগাবে সুজি৷ এর সঙ্গে সবজি মিশিয়ে ঝাল ঝাল সুজি কিন্তু খেতেই পারেন৷ নোনতা-মিষ্টি-ঝাল স্বাদ বুঝে দিন৷ দেখবেন আপনার এই ব্রেকফাস্টের আইটেম কিন্তু সুপারহিট হয়ে যাবে৷

 

স্প্রাউট স্যালাড: সকালে যোগ-ব্যায়ামের পর এই স্প্রাউট স্যালাড অনেকেই খেতে পছন্দ করেন৷ এই খাবার যেমন পেট ভরিয়ে রাখে তেমনই শরীর সুস্ত রাখতে অত্যন্ত প্রয়োজনীয়ও৷ তাই ব্রেকফাস্টে একবাটি অঙ্কুরিত ছোলা-মুগ খেতেই পারেন৷ এর মধ্যে রয়েছে ভিটামিন ই, পটাশিয়াম, আয়রন, এক কথায় প্রয়োজনীয় সবকিছুই৷ তার সঙ্গে স্যালাডের অন্যান্য উপকরণও জুড়ে দিতে পারেন৷

ছানার পদ: যারা দুধ বা ছানা খেতে পছন্দ করেন তারা ছানাতে ক্যাপসিকাম আর টোম্যাটোর কুচি দিয়ে, যোগ করুন নুন-মিষ্টি৷ রুটির মধ্যে পুর দিয়ে এটি খেতে পারেন৷ আবার দিতে পারেন স্যান্ডউইচেও৷ ছানার ফ্যাটি অ্যাসিড ফ্যাট বার্নিংয়ের হার বাড়ায় ও ওজন কমাতে সাহায্য করে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।