ভুবনেশ্বর: দিল্লির পরিস্থিতি ভয়াবহ৷ সেই আবহেই কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর মুখোমুখি হতে চলেছেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ শুক্রবার শহরের একটি পাঁচতারা হোটেলে হতে চলেছে ইস্টার্ন রিজিওনাল সিকিউরিটি কাউন্সিলের বৈঠক। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের পৌরহিত্যে এই বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন ৫টি রাজ্য বাংলা, বিহার, ওড়িশা, ঝাড়খন্ড ও ছত্রিশগড়ের মুখ্যমন্ত্রী, মুখ্যসচিব ও স্বরাষ্ট্রসচিবরা। ওই বৈঠকে দেশের সাম্প্রতিক পরিস্থিতি, দিল্লির অশান্তি ইত্যাদি বিষয় নিয়ে সেখানে মমতা কিছু বলেন কি না, তা নিয়ে কৌতূহল রয়েছে রাজনৈতিক শিবিরে।

জাতীয় নিরাপত্তা এবং সীমান্তের পরিস্থিতি নিয়ে পশ্চিমবঙ্গ, ঝাড়খন্ড, বিহার, ওডিশা এবং সিকিমের মুখ্যমন্ত্রীদের নিয়ে প্রতিবছর এই বৈঠক হয়। গতবছর এই বৈঠক হয়েছিল নবান্নে। সেই বৈঠকে দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং। এবার এই বৈঠক হবে ভুবনেশ্বরে। সেই বৈঠকেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। সেইমতো ২৫ জানুয়ারি অর্থাৎ গতকাল ভুবনেশ্বর গিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

আন্তঃরাজ্য বৈঠকে মমতা ছাড়াও থাকবেন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার, ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন ও ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়েক। আজ সকাল ১০টায় ভুবনেশ্বরের লোকসেবা ভবন চত্বরের নিউ কনভেনশন সেন্টারে শুরু হবে বৈঠক। কী নিয়ে আলোচনা হবে বৈঠকে? মাওবাদী-সমস্যা সমাধানে আন্তঃরাজ্য সমন্বয় থেকে জলবন্টন, কয়লার রয়্যালিটি-সহ বেশ কিছু বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে বলেই খবর।

বৈঠকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের যোগ দেওয়াকে কটাক্ষ করেছেন মহম্মদ সেলিম৷ তিনি বলেন, ”দিদিকে বলোতে বলে লাভ নেই। দিদি কিছু বলবেন না। পক্ষ নিতে হবে। আমাদের মুখ্যমন্ত্রী এনিয়ে চিন্তিত নন। নিজের অবস্থান বাঁচাতে ব্যস্ত উনি। অধীরের বক্তব্য, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ব্যর্থতার প্রতিবাদে বৈঠক বাতিল করুন মমতা।

তিনি আরও বলেন, ”স্বাধীনতার পর থেকে হিংসাগ্রস্ত এলাকায় যান বাংলার সাংসদরা। এখন সেটা হচ্ছে না। যেহেতু মুখ্যমন্ত্রী কোনও কথা বলছেন না, তাদের দলের নেতারাও নীরব। অমিত শাহের সঙ্গে দেখা করে রাজীব কুমারের জন্য উনি ব্যবস্থা করেছিলেন। তার বদলে রাজ্যে লুকিয়ে এনপিআর করেছেন, ডিটেনশন ক্যাম্প হয়েছে। বিনিময়ে সারদা, নারদার তদন্তকারী অফিসারদের সরিয়ে নিয়েছে কেন্দ্র।”

লোকসভায় কংগ্রেসের দলনেতা তথা বহরমপুরের সাংসদ অধীর চৌধুরীর কথায়,”বাংলার অগ্নিকন্যা কি দিল্লির সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার আঁচ অনুভব করছেন না? ঘটনার নিন্দা করার প্রয়োজন মনে করলেন না। অবাক হলাম! দাঙ্গার প্রতিবাদ নেই। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ব্যর্থতার প্রতিবাদে মিটিং বাতিল করুন।”

ইস্টার্ন রিজিওনাল সিকিউরিটি কাউন্সিলের বৈঠকের পর কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে একান্তে বৈঠক হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। ওই বৈঠকে রাজ্যের পক্ষ থেকে রাজ্যের সঙ্গে সম্পৃক্ত সমস্ত অন্তর্দেশীয় বর্ডারের পরিস্থিতি নিয়ে একটি বিশেষ রিপোর্ট কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হাতে তুলে দেওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে সূত্রের খবর। যদিও এই বৈঠকের বিষয়ে সরকারি তরফে এখনও কিছু জানানো হয়নি।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV