ফাইল ছবি

কলকাতা : অবশেষে শহরতলির মানুষদের জন্য সুখবর। পুজোর মধ্যে না হলেও, পুজোর পরে লোকাল ট্রেন চালানো হতে পারে। এজন্য প্রস্তুত পূর্ব রেল। লোকাল ট্রেন চালানো হলে বেশ কয়েকটি নির্দেশিকা জারি হতে পারে। সেই নির্দেশিকা প্রস্তুত করা হচ্ছে বলে পূর্ব রেল সূত্রে খবর।

এই বিষয়ে রাজ্য সরকারের সহযোগিতা চাইছে পূর্ব রেল। শহরতলি ও নিত্যযাত্রীদের তরফ থেকে একাধিক আবেদন পাওয়ার পরেই প্রস্তুতি নিতে শুরু করে পূর্ব রেল।

জানানো হয়েছে, পূর্ব রেলের তরফে কোনও সমস্যা নেই ট্রেন চালানোর বিষয়ে। রাজ্য ও কেন্দ্রের তরফ থেকে সবুজ সিগন্যাল পেলেই লোকাল ট্রেন চালানো হবে। লোকাল ট্রেন চালানো হলে কিছু নির্দেশিকা মেনে চলতে হবে।

এর মধ্যে রয়েছে ট্রেনের প্রতিটি কোচে যাত্রী সংখ্যা নির্দিষ্ট করে দেওয়া। হাওড়া ও শিয়ালদা থেকে নজরদারি চালানো, সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা ইত্যাদি।

পূর্ব রেল জানিয়েছে শহরতলির স্টেশনগুলিতে ভিড় নিয়ন্ত্রণ করার জন্য ই পাস চালু করা হোক। এতে প্রত্যেক স্টেশনে ভিড় কমবে ও সুশৃঙ্খল ভাবে তা নিয়ন্ত্রিত করা যাবে। এজন্য এক যোগে কাজ করতে হবে রাজ্য পুলিশ ও জিআরপিকে।

এর আগে, লোকাল ট্রেন চালাতে চেয়ে রাজ্যকে চিঠি দেয় কেন্দ্র। সূত্র মারফত এমনই খবর মেলে। লোকাল ট্রেন চালানোর দাবিতে রাজ্যের বিভিন্ন স্টেশনে বাড়ছে ক্ষোভ। বিজেপি সহ ডান-বাম সমস্ত রাজনৈতিক দলও লোকাল ট্রেন চালুর দাবি জানাচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে ক্রমশ চাপ বাড়ছে রাজ্যের উপর।

এই অবস্থায় লোকাল ট্রেন চালাতে চেয়ে রাজ্যকে চিঠি দিয়েছে কেন্দ্র। সূত্রের খবর, ওই চিঠিতে রাজ্যকে জানানো হয়েছে যে লোকাল ট্রেন চালু করতে কেন্দ্রের কোনও অসুবিধে নেই। তবে চাই রাজ্যের সবুজ সঙ্কেত।

শুধু তাই নয়, লোকাল ট্রেন চালু সবুজ সঙ্কেত পাওয়ার পর হাতে কিছুদিন সময়ও চেয়ে নেওয়া হবে বলে ওই চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে বলে খবর। অন্যদিকে, অতিরিক্ত যাত্রী ভিড় সামাল দিতে পূর্ব রেল ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত সম্পূর্ণ সংরক্ষিত ছ’টি উৎসব স্পেশাল ট্রেন চালাতে শুরু করেছে বলে খবর।

এর মধ্যে দুটি সুপারফাস্ট ট্রেনও রয়েছে বলে পূর্ব রেল জানিয়েছে। শিয়ালদহ- নিউ জলপাইগুড়ি সুপারফাস্ট আগামী মঙ্গলবার রাত ১০ টা ৫ মিনিটে এবং পরদিন সন্ধ্যা ৮ টায় নিউ জলপাইগুড়ি থেকে ছাড়বে।

স্বামীর সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে বস্ত্র ব্যবসাকে অন্যমাত্রা দিয়েছেন।'প্রশ্ন অনেকে'-এ মুখোমুখি দশভূজা স্বর্ণালী কাঞ্জিলাল I