কলকাতা: ক্লাব লাইসেন্সিং’য়ের প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার জন্য ইস্টবেঙ্গলের জন্য বাড়তি সময় বরাদ্দ করল অল ইন্ডিয়া ফুটবল ফেডারেশন। শতবর্ষে পা দেওয়া ইস্টবেঙ্গলের ঐতিহ্যের কথা মাথায় রেখেই এমন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে ফেডারেশন। গত দু’মরশুমে ক্লাবের ইনভেস্টর কোয়েসের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন হলেও স্পোর্টিং রাইটস এবং নো-অবজেকশন সার্টিফিকেট এখনও হাতে পায়নি ইস্টবেঙ্গল। ফলে ক্লাব লাইসেন্সিং’য়ের প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে পারছে না শতবর্ষে পা দেওয়া ক্লাব।

এই মর্মে বাড়তি সময় চেয়ে ফেডারেশনকে একটি ই-মেলও করেছিল ক্লাব। ইস্টবেঙ্গলের সেই ই-মেলের পরিপ্রেক্ষিতে বুধবার ইস্টবেঙ্গলকে বাড়তি সাতদিন সময় দিয়েছে ফেডারেশন। গোটা বিষয়টি প্রক্রিয়াকরণের জন্য কলকাতা জায়ান্টদের চলতি মাসের পুরো সময়টা দিয়েছে অল ইন্ডিয়া ফুটবল ফেডারেশন। ইস্টবেঙ্গল কর্তারা নিশ্চিত ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে কোয়েসের থেকে তাঁরা নিশ্চিতভাবে নো-অবজেকশন সার্টিফিকেট এবং স্পোর্টিং রাইটস ফিরে পাবে।

স্বাভাবিকভাবেই ফেডারেশন বাড়তি সাতদিন সময় দেওয়ায় কিছুটা স্বস্তি ফেলছেন লাল-হলুদ সমর্থকেরা। ইস্টবেঙ্গল কর্তাদের কথায়, কোয়েস ইস্টবেঙ্গল কোম্পানিতে ইস্টবেঙ্গলের শেয়ার কোয়েসের নামে ট্রান্সফারের কাজ মিটে গেলেই আর কোনও সমস্যা থাকবে না। পাশাপাশি কোয়েসের থেকে স্পোর্টিং রাইটস এবং নো-অবজেকশন সার্টিফিকেট ফিরে পেলেই নয়া ইনভেস্টরের নাম ঘোষণা করা হবে বলেও কর্তারা আশ্বস্ত করছেন সমর্থকদের। কিন্তু আদৌ কী তা কতোটা বাস্তবায়িত হয়, ইস্টবেঙ্গল আসন্ন মরশুমে কোন লিগে খেলে সেটা জানার জন্য অপেক্ষা আর কয়েকদিনের।

ইস্টবেঙ্গলকে বাড়তি সময় দেওয়া প্রসঙ্গে ফেডারেশন সচিব কুশল দাস বাংলার জনপ্রিয় এক ক্রীড়া সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ‘লাইসেন্সিং’য়ের শর্তপূরণের বিষয়টি আমাদের অগাস্টের মধ্যে শেষ করতে হবে। এরপর সেগুলো এএফসি’র কাছে পাঠাতে হবে। নভেম্বরে টুর্নামেন্ট শুরু হয়ে যাবে। আগামী সপ্তাহে আমাদের ক্লাব লাইসেন্সিং শুরু হয়ে যাবে। তবে কোনও ক্লাবের যদি কোনও অসুবিধা থাকে তাহলে আমরা তাদের সময় দেব। এই সময়ের মধ্যে ইস্টবেঙ্গল কোয়েসের সঙ্গে সবরকম চুক্তি ছিন্ন করে যদি নতুন ইনভেস্টর নিয়ে আসে তাহলে চিন্তার কোনও কারণ নেই।’

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ