কলকাতা: হেক্সা লিগ জয়ের নায়ক কোরিয়ান মিসাইল ডো ডং হিউনকে নিয়ে কড়া অবস্থানেই রইলেন ইস্টবেঙ্গল কোচ বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্য৷বারাসত স্টেডিয়ামে আইজল এফসির ম্যাচে ৬০ মিনিটের মাথায় তাঁকে  তুলে জোয়াকিমকে নামান কোচ৷ আর তাতেই প্রকাশ্যে অসন্তোষ প্রকাশ করেন ডং৷ সাইডলাইনের ধারে রাখা একটি জলের বোতলে লাথি মারার পাশাপাশি রিজার্ভ বেঞ্চেও বসতে চাননি তিনি৷ পরে তাঁকে শান্ত করা হয়৷ কিন্তু ক্লাবের তরফ থেকে পরের দিনই ডংকে জরিমানা করা হয়৷ সেই সঙ্গে ক্ষমা চাইতেও বলা হয়৷ রবিবার হেডকোচ বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্য ফের জানিয়ে দিলেন সোমবার কোরিয়ান ফুটবলারটি জরিমানা না দিলে দলের সঙ্গে অনুশীলন করতে পারবেন না৷ 

অন্যদিকে, এদিন কোচের কাছেই একাই অনুশীলন করেন লাল-হলুদের চতুর্থ বিদেশি বার্নাড মেন্ডি৷ শনিবার তাঁর পরিবার ফ্রান্স থেকে আসায় ফরাসি ফুটবলারটি ছুটি নিয়েছিলেন৷ তাই এদিন নিজেই আলাদা করে এক ঘণ্টা প্রাকটিস করেন বিশ্বজিতের কাছে৷ তাঁর দায়বদ্ধতা দেখে মুগ্ধ লাল-হলুদ কোচও৷ মেন্ডির সতীর্থরাও আশাবাদী তাঁকে নিয়ে৷
 

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।